মেইন ম্যেনু

ঢাবিতে ছাত্রদলের ওপর ছাত্রলীগের হামলা, আহত ৪০

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি সনজিত চন্দ্র দাসের নেতৃত্বে ক্যাম্পাসে ছাত্রদলের নেতাকর্মীদের ওপর হামলার ঘটনা ঘটেছে। এ সময় ছাত্রদলের ৪০ জন নেতাকর্মী আহত হয়েছেন বলে অভিযোগ করেছেন দলের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন শ্যামল।

তিনি অভিযোগ করেন, হামলার সময় ছাত্রদল নেতাদের ব্যবহৃত একটি মোটরসাইকেল ও মোবাইল ছিনিয়ে নিয়ে গেছে ছাত্রলীগ। এ সময় একজন সাংবাদিক মারাত্মকভাবে আহত হন এবং তার মোবাইলও সনজিতের অনুসারীরা ছিনিয়ে নিয়ে গেছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে ক্যাম্পাসের হাকিম চত্বরে মাই টিভিতে সাক্ষাৎকার দিতে আসেন ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক। এ সময় ৭-৮ জন নেতাকর্মী নিয়ে সনজিত ছাত্রদল নেতাকর্মীদের এলাকা ছেড়ে চলে যেতে বলেন। এর কিছুক্ষণ পর ছাত্রদল টিএসসিতে চলে আসলে সনজিতের অনুসারী কমপক্ষে ৫০ জন নেতাকর্মী রড, লাঠিসোটা নিয়ে ছাত্রদলকে মারধর করে।

এদিকে পেশাগত দায়িত্ব পালন করার সময় ছাত্রলীগের হামলায় কমপক্ষে তিনজন সাংবাদিক আহত হয়েছেন। এর মধ্যে স্টুডেন্ট জার্নালের বিশ্ববিদ্যালয় রিপোর্টার আনিসুর রহমানের কান ফেটে যায়। ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা সাংবাদিকদের মোবাইল ছিনিয়ে নিয়ে যান।

ছাত্রদল সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন শ্যামল বলেন, ‘ছাত্রলীগের ঢাবি সভাপতি সনজিতের নেতৃত্বে আমাদের ওপর হামলা হয়েছে। আমাদের মোবাইল ও মোটরসাইকেল ছিনতাই করে নিয়ে যাওয়া হয়। আমরা এর বিচার দাবি করছি।’

এ বিষয়ে ছাত্রলীগের সভাপতি সনজিত চন্দ্র দাস জানান, ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার রায়ে দণ্ডিত আসামি তারেক রহমানকে নিয়ে শ্লোগান দেওয়ায় সাধারণ ছাত্ররা ছাত্রদলকে প্রতিহত করেছে। এ সময় দুইপক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এ ঘটনায় জগন্নাথ হল ছাত্রলীগের ক্রীড়া সম্পাদকসহ ছাত্রলীগের বেশ কয়েকজন আহত হয়েছে।



মন্তব্য চালু নেই