তর্কবাগীশ সাহিত্য সম্মাননা পেলেন মোস্তফা কামাল মাহদী

প্রখ্যাত সাংবাদিক, সাহিত্যিক এবং সংগঠক মোস্তফা কামাল মাহদী তর্কবাগীশ সাহিত্য পরিষদ আয়োজিত তর্কবাগীশ সাহিত্য স্মারক- ২০২১ পেয়েছেন। ২ ফেব্রুয়ারি রাজধানীর পল্টনে ইকনোমিক রিপোর্টার্স ফোরাম মিলনায়তনে তাঁর হাতে সম্মাননা স্মারক তুলে দেন সাবেক উপ-মন্ত্রী ও ১৪ দলের নেতা বীরমুক্তিযোদ্ধা সাদেক সিদ্দিকী।

তর্কবাগীশ সাহিত্য পরিষদের সভাপতি প্রফেসর ড. হাবিবুর রহমান খানের সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক কাউসার হোসেন সুইট এর পরিচালনায় অনুষ্ঠানের উদ্বোধক ছিলেন অ্যাডভোকেট সামসুল আলম দুদু এমপি।

স্বাগত বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ গণআজাদী লীগের মহাসচিব মুহাম্মদ আতা উল্লাহ খান। মূল প্রবন্ধ উপস্থাপনা করেন বঙ্গবন্ধু গবেষণা পরিষদের চেয়ারম্যান লায়ন গণি মিয়া বাবুল।

মোস্তফা কামাল মাহদী ছাড়াও লায়ন গণি মিয়া বাবুল, মেহের নিগার শিউলি, প্রফেসর ড এ আর খান, বীরমুক্তিযোদ্ধা আনোয়ার হোসেন সাবেক ডিআইজি, আলহাজ্ব চান মিয়া, প্রফেসর হারুন অর রশীদ, প্রফেসর এম আমিনুর রহমান, খন্দকার শফিউল আলম সবুজ, টিমুনী খান রীনো, সৈয়দ নাজমুল আহসান, এবিএম সোহেল রশীদ, ড. মাসউদুর রহমান, আইরিন খানসহ মোট ৩০ জন সম্মাননা স্মারক পেয়েছেন।

মোস্তফা কামাল মাহদী পিরোজপুর জেলার মঠবাড়ীয়া উপজেলার বুখইতলা বান্ধব পাড়া গ্রামে ২ মে জন্মগ্রহণ করেন। প্রাইমারী স্কুল শিক্ষক আবদুর রব আকন এবং মরহুমা শাহীনা বেগমের চার পূত্রের মধ্যে মোস্তফা কামাল মাহদী ২য় সন্তান। তিনি বাংলা ভাষা ও সাহিত্যে এম.এ, ইসলামী শিক্ষায় এম.এ, কামিল এম.এ, ইংরেজী ভাষা ও সাহিত্যে অনার্স ও মাস্টার্স সহ আরো বিভিন্ন ডিগ্রী অর্জন করেছেন এবং করে যাচ্ছেন।

নব্বই দশকের মাঝামাঝি বিনোদনের সেরা সাপ্তাহিক ছায়াছন্দ ম্যাগাজিন পত্রিকার মাধ্যমে লেখালেখি শুরু করেন। বর্তমানে তিনি একজন খ্যাতিমান সাংবাদিক, সম্পাদক, প্রকাশক, সংগঠক, আলোচক ও ইসলামী চিন্তাবিদ।

২০০০ সালের পর থেকে অদ্যবধি তিনি বিভিন্ন জাতীয় ও স্থানীয় দৈনিক, সাপ্তাহিক, পাক্ষিক, মাসিক পত্রিকায় লেখালেখি ও সাংবাদিকতা করে আসছেন। কাজ করেছেন সাপ্তাহিক খোরাক (ভ্রাম্যমান প্রতিনিধি), সাপ্তাহিক আলোচনা (সাহিত্য সম্পাদক), সাপ্তাহিক সোনার বাংলা (জেলা সংবাদদাতা(,দৈনিক সংগ্রাম (সংবাদদাতা), দৈনিক নয়াদিগন্ত (সংবাদদাতা) হিসেবে। লেখালেখি করেছেন এম.কামাল, মোস্তফা কামাল মাহদী, এম.কে মাহদী, মাহদী কামাল, মোস্তফা মাহদী,ইবনে আঃ রব এবং সানী মতিউর নামে।

ছিলেন বুনন (২০০৪), স্কুল বিচিত্রা (২০০৯), আর্থিক খবর (২০১০ )এর নির্বাহী সম্পাদক হিসেবে এবং আয়না (২০০৬) , শিক্ষা পরিক্রমা (২০১১), সাপ্তাহিক দেশকন্ঠ(২০১১ )এর সম্পাদক হিসেবে। কাজ করেছেন বুনন সাহিত্য সাংস্কৃতিক সংসদ (২০০৪) এর সাধারণ সম্পাদক, সকাল সাংস্কৃতিক সংসদ (২০০৭) চেয়ারম্যান মাওলানা তারিক মুনাওয়ার) এর প্রচার সম্পাদক হিসেবে।

দিন বদলের পালা (২০০৬), কাব্য জোছনা (২০১৮) নামে ২টি কাব্যগ্রন্থ সম্পাদনা করেছেন এবং অপ্রকাশিত রয়েছে প্রায় অর্ধ ডজনের মতো গ্রন্থসমূহ। ২০১৮ সালে তিনি দক্ষিণ বাংলাগ্রন্থ উৎসবে সংবির্ধত হন।

তিনি ২০১৯ সালে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে তার নিজ এলাকা পিরোজপুর জেলার মঠবাড়ীয়া উপজেলা থেকে চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হয়েছিলেন।

২০২০ সালের ২৭ নভেম্বর তিনি মাদারীপুর জেলা মিডিয়া সেন্টারের পক্ষ থেকে বিশেষ সংবর্ধনায় ভূষিত হন।

বর্তমানে তিনি দেশের বহুল প্রচারিত সাপ্তাহিক দেশগ্রাম পত্রিকা এবং দেশগ্রাম ২৪ ডটকম এর সম্পাদক ও প্রকাশক, জাগো মানবকল্যাণ সোসাইটির প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান, দেশগ্রাম মিডিয়া সেন্টারের চেয়ারম্যান, ন্যাশনাল পিপলস পার্টি (এনপিপি)এর কেন্দ্রীয় নেতা হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।



মন্তব্য চালু নেই