মেইন ম্যেনু

দিনাজপুর বোর্ডে যে ১২টি কলেজের কেউ পাস করেনি

দিনাজপুর মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষাবোর্ডে এবারের এইচএসসি পরীক্ষার প্রকাশিত ফলাফলে ১২টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে কোনো পরীক্ষার্থী পাস করতে পারেনি।

এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো হলো রংপুরের পীরগঞ্জ উপজেলার মহিয়সী বেগম রোকেয়া কলেজ, লালমনিরহাট জেলার কালিগঞ্জের ধুলাই এস সি হাই স্কুল এন্ড কলেজ, লালমনিরহাট জেলার কালিগঞ্জের দাকশিন ঘনশ্যাম স্কুল এন্ড কলেজ, নীলফামারী জেলার সদরের নগর দারোয়ানী স্কুল এন্ড কলেজ, লালমনিরহাট জেলার আদিতমারি উপজেলার নামুড়ি হাই স্কুল এন্ড কলেজ, ঠাকুরগাও জেলার বালিয়াডাঙ্গি উপজেলার রাতনাল বাগুলা বাড়ি হাই স্কুল এন্ড কলেজ, রংপুর জেলার পীরগাছা উপজেলার তামবুলপুর কলেজ, রংপুর জেলার বদরগঞ্জের কুটুপুর এরুন্নেসা হাই স্কুল এন্ড কলেজ, কুড়িগ্রাম জেলার উলিপুর উপজেলার ইউমানন্দা স্কুল এন্ড কলেজ, রংপুর জেলার সদরের অক্সব্রিজ কলেজ, রংপুর জেলার মিঠাপুকুর উপজেলার পাটগঞ্জ হাইস্কুল এন্ড কলেজ, ঠাকুরগাও জেলার বালিয়াডাঙ্গি উপজেলার মড়লহাট জনতা স্কুল এন্ড কলেজ।

বোর্ড সূত্রে জানা যায়, রংপুরের পীরগঞ্জ উপজেলার মহিয়সী বেগম রোকেয়া কলেজ শিক্ষার্থী ৮ জন, লালমনিরহাট জেলার কালিগঞ্জের ধুলাই এস সি হাই স্কুল এন্ড কলেজ শিক্ষার্থী ৭ জন, লালমনিরহাট জেলার কালিগঞ্জের দাকশিন ঘনশ্যাম স্কুল এন্ড কলেজ শির্ক্ষী ৭ জন, নীলফামারী জেলার সদরের নগর দারোয়ানী স্কুল এন্ড কলেজ শিক্ষার্থী ৫জন, লালমনিরহাট জেলার আদিতমারি উপজেলার নামুড়ি হাই স্কুল এন্ড কলেজ শিক্ষার্থী ৪জন, ঠাকুরগাও জেলার বালিয়াডাঙ্গি উপজেলার রাতনাল বাগুলা বাড়ি হাই স্কুল এন্ড কলেজ শিক্ষার্থী ৪জন, রংপুর জেলার পীরগাছা উপজেলার তামবুলপুর কলেজ শিক্ষার্থী ২জন, রংপুর জেলার বদরগঞ্জের কুটুপুর এরুন্নেসা হাই স্কুল এন্ড কলেজ শিক্ষার্থী ২জন, কুড়িগ্রাম জেলার উলিপুর উপজেলার ইউমানন্দা স্কুল এন্ড কলেজ শিক্ষার্থী ২জন, রংপুর জেলার সদরের অক্সব্রিজ কলেজ শিক্ষার্থী ১জন, রংপুর জেলার মিঠাপুকুর উপজেলার পাটগঞ্জ হাইস্কুল এন্ড কলেজ শিক্ষার্থী ১জন, ঠাকুরগাও জেলার বালিয়াডাঙ্গি উপজেলার মড়লহাট জনতা স্কুল এন্ড কলেজের একজন শিক্ষার্থী এ বছর এইচএসসি পরীক্ষার্থী অংশগ্রহণ করে।

এ ব্যাপারে দিনাজপুর মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষাবোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক তোফাজ্জুর রহমান বলেন, এসব কলেজকে শোকজ করা হবে। সন্তোষজনক উত্তর পাওয়া না গেলে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হবে। এর আগের বছরেও এ রকম ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।



মন্তব্য চালু নেই