দেশের প্রথম করোনা রোগী প্রধানমন্ত্রীকে শোনালেন সুস্থ হওয়ার গল্প

ঢাকায় শনাক্ত হওয়া প্রথম করোনাভাইরাস রোগী ফয়সাল শেখ। তিনি জার্মানিতে লেখাপড়া করেন। গত ১ মার্চ ঢাকায় আসেন। দেশে ফেরার ১০ দিন পর তার করোনাভাইরাসের লক্ষণ দেখা দেয়।

এরপর নিজ উদ্যোগে সরকারের রোগতত্ত্ব রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটে (আইইডিসিআর) যান ফয়সাল শেখ। সেখানে প্রাথমিক টেস্টে তার শরীরে করোনাভাইরাস পজেটিভ বলে জানানো হয়। তিনি এখন সুস্থ।

মঙ্গলবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এভাবেই অভিজ্ঞতার কথা জানান ফয়সাল। তিনি বলেন, ‘আমি জার্মানিতে পড়ালেখা করি। গত ১ মার্চ দেশে আসি পরিবারের সাথে সময় কাটানোর জন্য। আসার ১০ দিন পর আমার শরীর খুব খারাপ মনে হয়। করোনার লক্ষণ দেখা দিলে আমি নিজে থেকে আইডিসিআর যাই। সত্যি কথা বলতে আমি প্রথম একটু ভয় পেয়েছিলাম। যে এখানে আমি জার্মানির মতো চিকিৎসা সেবা পাবো কি না?’

ফয়সাল বলেন, ‘শেষ পর্যন্ত আইইডিসিআর আমাকে যে নির্দেশনা দেয় সেই নির্দেশনা মোতাবেক আমি কুয়েত মৈত্রী হাসপাতালে কোয়ারেন্টিনে (সঙ্গরোধে) থাকি। আমার পরিবারের সদস্য এবং আমি যাদের সঙ্গে দেখা করেছি, তাদেরও হোম কোয়ারেন্টিনে (বাড়িতে সঙ্গরোধে) রাখে। কয়েক দফা টেস্ট করার পর যখন করোনাভাইরাস নেগেটিভ আসে, আমি পরিবারের কাছে ফিরে যাই। আমার পরিবারের অন্য কারও কোনো সমস্যা হয়নি।’

আইইডিসিআর প্রসঙ্গে এই তরুণ বলেন, ‘তখন থেকে ডাক্তার ফার্সি আমার সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রেখেছেন। খোঁজ-খবর নিয়েছেন। আমি সত্যি খুশি। যে ধরনের চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে আমি এ জন্য শুকরিয়া আদায় করছি। আপনার (প্রধানমন্ত্রীর) নির্দেশনায় আমি দেশবাসীকে বলব, ঘরে থাকুন, যতদিন ঘরে থাকতে বলে ঘরে থাকুন। সবাই ঘরে থাকলে এরকম পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে পারব।’

প্রধানমন্ত্রী ফয়সালের কাছে জানতে চান, তোমার পরিবারের কারও সমস্যা হয়নি? জবাবে ফয়সাল বলেন, ‘না’। এরপর প্রধানমন্ত্রী সন্তোষ প্রকাশ করেন।



মন্তব্য চালু নেই