মেইন ম্যেনু

প্রেমের টানে নোয়াখালীতে স্কুলছাত্রী, একমাস পর উদ্ধার || প্রেমিক গ্রেফতার

এইচ.এম আয়াত উল্যা, নোয়াখালী প্রতিনিধি : প্রেমের টানে লক্ষ্মীপুর জেলার রামগঞ্জ উপজেলা থেকে প্রেমিকের সাথে পালিয়ে আসা এক স্কুল ছাত্রীকে এক মাস পর নোয়াখালীর সুধারাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. নবীর হোসেনের নেতৃত্বে একদল পুলিশ জেলার সেনবাগ থেকে তাদের দুই জনকে উদ্ধার করে। পরে প্রেমিক শিহাব উদ্দিন রাজুকে গ্রেফতার করে রামগঞ্জ থানায় প্রেরণ করে পুলিশ। আসামী শিহাব উদ্দিন রাজু সদর উপজেলার দাদপুর ইউনিয়নের রামহরিতালুক গ্রামের মহি উদ্দিন মনিরের ছেলে। পুলিশ জানায়, লক্ষ্মীপুর জেলার রামগঞ্জ উপজেলার ভাটিয়ালপুর গ্রামের ছালা উদ্দিনের মেয়ে অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী (১৫) নোয়াখালী সদর উপজেলার দাদপুর ইউনিয়নের রামহরিতালুক গ্রামের শিহাব উদ্দিন রাজুর সাথে দীর্ঘদিন থেকে প্রেম করে আসছিলো। এর একপর্যায়ে ১৮ আগস্ট প্রেমের টানে ওই স্কুলছাত্রী প্রেমিকের চলে আসে। পরে তারা পালিয়ে এফিডেভিটের মাধ্যমে কোর্ট ম্যারেজ করে দুইজনে সংসার শুরু করে।

এদিকে, ওই স্কুলছাত্রীর পিতা ছালা উদ্দিন ১৮ আগস্ট বাদী হয়ে রামগঞ্জ থানায় প্রেমিক শিহাব উদ্দিন রাজু, মো. রাসেল ও দাদপুর ইউনিয়নের ইউপি সদস্য জহির উদ্দিন মেম্বারের বিরুদ্ধে অপহরণের একটি মামলা করেন। ওই মামলায় সুধারাম থানা পুলিশ গোপন সংবাদের ভিত্তিতে দুইজনকে সেনবাগ থেকে উদ্ধার করে। পরে প্রেমিক শিহাব উদ্দিন রাজুকে গ্রেফতার করে রামগঞ্জ থানার পুলিশের কাছে সোপর্দ করে।

অন্যদিকে, নোয়াখালীর সদর উপজেলার দাদপুর ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের সদস্য জহির মেম্বারকে ষড়যন্ত্রমূলকভাবে মামলায় আসামী করার অভিযোগ ওঠে। জহির মেম্বার জানান, আসামী রাজুর বাড়ী আমার এলাকার পাশর্^বর্তী হওয়ায় আমার প্রতিপক্ষের লোকজন ওই স্কুলছাত্রীর বাবাকে ভুল বুঝিয়ে আমাকে ষড়যন্ত্রমূলকভাবে মামলায় আসামী করা হয়।

পুলিশকেও ওই স্কুলছাত্রী জানায়, দীর্ঘদিন থেকে প্রেম করে পরিবারের অমতে পালিয়ে এসে সে শিহাব উদ্দিন রাজুকে বিয়ে করে। এর সাথে জহির মেম্বার সহ অন্য কারো কোনো ধরনের সম্পৃত্ততা নেই।

সুধারাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. নবীর হোসেন জানান, এ ঘটনার সাথে স্থানীয় ইউপি সদস্য জহির মেম্বার জড়িত থাকার কোনো প্রমান পাওয়া যায়নি। স্কুলছাত্রী নিজের ইচ্ছায় পালিয়ে এসে রাজুকে বিয়ে করেছে। পরে রামগঞ্জ থানার তদন্ত কর্মকর্তার কাছে ওই দুইজনকে হস্তান্তর করা হয়েছে।



মন্তব্য চালু নেই