শিরোনাম:

ফেসবুকেও ধর্ষিত হওয়ার ইঙ্গিত দিয়েছিলেন তরুণীরা

বনানীর রেইনট্রি হোটেলে ধর্ষণের শিকার হওয়া দুই তরুণী ওই সময়ই ইঙ্গিত দিয়েছিলেন তাদের জীবনে ভয়াবহ কিছু ঘটে গেছে। যা কখনো মুছে দেয়া সম্ভব নয়।

এ ঘটনার পরের দুই-তিন দিনে তাদের ফেসবুকের ওয়ালে তারা কয়েকটি হতাশা, ধর্ষণের শিকার হওয়া নারীদের প্রতীকী ছবি দেন। তা থেকে তাদের বন্ধুরা জানতেও চান কী হয়েছে তোমার।

হয়তো মুখে হাসি এনে তারা জবাব দিয়েছেন- কিছু হয়নি বন্ধু। আবার কাউকে বলেছেন, জীবনের সব ঘটনা কি মুছে দেয়া যায়?

ধর্ষণের শিকার হওয়া ওই তরুণীদের ব্যাক্তিগত গোপনীয়তার রক্ষায় তাদের আইডির কোনো কিছুই প্রকাশ করা হলো না।

গত ২৮ মার্চ অভিযোগকারী ও তার বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া আরেক বান্ধবী ধর্ষণের শিকার হন বনানীর রেইনট্রি হোটেলে জন্মদিনের পার্টিতে গিয়ে।

ঘটনার এক মাসেরও বেশি সময় পরে গত ৬ মে মামলা দায়ের করেন তারা।

মামলায় আপন জুয়েলার্সের মালিকের ছেলে সাফাত আহমেদ (২৬) ও তার বন্ধু নাঈম আশরাফ (৩০), সাদমান সাকিফসহ তাদের গাড়িচালক বিল্লাল ও দেহরক্ষীকে আসামি করা হয়।

মামলার অভিযোগে বলা হয়, প্রধান দুই আসামি তাদের অস্ত্রের মুখে জোর করে ধর্ষণ করেছে।