বঙ্গবন্ধু-ডিআরইউ ‘বেস্ট রিপোর্টিং অ্যাওয়ার্ড’ পেলেন ১৫ সাংবাদিক

ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি-ডিআরইউ’র রজতজয়ন্তীতে মুক্তিযুদ্ধ, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, অর্থ-বাণিজ্যসহ নানা ক্ষেত্রে অনুসন্ধানী প্রতিবেদনের জন্য বঙ্গবন্ধু-ডিআরইউ ‘বেস্ট রিপোর্টিং অ্যাওয়ার্ড’ পেয়েছেন ১৫ জন সাংবাদিক।

শুক্রবার বিকালে রাজধানীর ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীর পক্ষে তাদের হাতে এই পুরস্কার তুলে দেন নৌ প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী।

এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন ডিআরইউ সভাপতি রফিকুল ইসলাম আজাদ ও সাধারণ সম্পাদক রিয়াজ চৌধুরী।

বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে এ বছর ডিআরইউ বেস্ট রিপোর্টিং অ্যাওয়ার্ড উৎসর্গ করা হয় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে। পুরস্কারের অর্থমূল্য ৫০ হাজার টাকা থেকে দ্বিগুণ করে ১ লাখ টাকা করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন ডিআরইউর দপ্তর সম্পাদক হাবিবুর রহমান।

এ বছর প্রিন্ট ও অনলাইন সংবাদপত্রের মুক্তিযুদ্ধ শাখায় পুরস্কার পেয়েছেন দৈনিক সমকালের নিজস্ব প্রতিবেদক আবু সালেহ রনি, শিক্ষায় দ্য ফিনান্সিয়াল এক্সপ্রেসের রায়হান এম চৌধুরী, স্বাস্থ্যে কালের কণ্ঠের আরিফুর রহমান, অনুসন্ধানী রিপোর্টে (উন্মুক্ত) প্রথম আলোর কামরুল হাসান, অর্থ-বাণিজ্যে ভোরের কাগজের মরিয়ম সেঁজুতি, সেবা খাতে বাংলা ট্রিবিউনের শাহেদ শফিক, ক্রীড়ায় নয়াদিগন্তের রফিকুল হায়দার ফরহাদ, শিল্প-সংস্কৃতি-ঐতিহ্যে জনকণ্ঠের মনোয়ার হোসেন, আইন ও মানবাধিকারে ইত্তেফাকের সমীর কুমার দে।

ইলেকট্রনিক মিডিয়ার (টিভি ও রেডিও) সেবা খাতে পুরস্কার পেয়েছেন চ্যানেল টোয়েন্টিফোরের মো. মাকসুদ-উন-নবী, অনুসন্ধানী প্রতিবেদনের জন্য যমুনা টেলিভিশনের থ্রি সিক্সটি ডিগ্রি অনুষ্ঠানের ইনচার্জ মো. আলাউদ্দিন আহমেদ ও একই টিমের কাজী ইমতিয়াজ আল মমিন, অর্থ ও বাণিজ্য শাখায় পুরস্কার পেয়েছেন এনটিভির হাসানুল আলম শাওন, স্বাস্থ্যে যমুনা টিভির সাজ্জাদ পারভেজ, নারী ও শিশু বিষয়ে নিউজ টোয়েন্টিফোরের আশিকুর রহমান শ্রাবণ।

বঙ্গবন্ধু-ডিআরইউ বেস্ট রিপোর্টিং অ্যাওয়ার্ড প্রদান অনুষ্ঠানে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেন, “গণমাধ্যমের খবর মানুষকে সচেতন করে, নানা সিদ্ধান্ত নিতে সহায়তা করে। গণমাধ্যমকে গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভ বা ওয়াচ ডগ যাই বলি না কেন, তথ্য যেন বস্তুনিষ্ঠ হয়, সে তথ্যের ভিত্তিতে আমাদের সিদ্ধান্ত গ্রহণের জায়গা যেন আরও সুসংহত হয়, সেদিকে লক্ষ রাখতে অনুরোধ করব।”

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আতিকুল ইসলাম ভার্চুয়ালি অনুষ্ঠানে যুক্ত হয়ে ডিএনসিসির পক্ষ থেকে আগামী বছর থেকে নগর সাংবাদিকতায় শ্রেষ্ঠ ১০টি প্রতিবেদনের জন্য পুরস্কার দেওয়ার সিদ্ধান্ত জানান।

মেয়র হিসেবে দায়িত্ব পালনে গণমাধ্যমের সহযোগিতার কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, “সাংবাদিকরা নগরের নানা সমস্যা যখন আমাদের সামনে তুলে ধরেন, ভুল-ত্রুটি যখন আমাদের সামনে তুলে ধরেন তখন তা আয়নার মতো ভেসে উঠে কোথায় কোন সমস্যা। এ শহরকে ঠিক করতে হলে আমাদের একসঙ্গে কাজ করতে হবে।”



মন্তব্য চালু নেই