প্রধান ম্যেনু

বাংলাদেশে কারিগরি শিক্ষা বৃদ্ধির লক্ষে নোয়াখালী জেলাসহ ২১টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সাথে সুদক্ষের চুক্তি স্বাক্ষর

এইচ. এম আয়াত উল্যা, নোয়াখালী থেকে : বাংলাদেশে দক্ষতা ও কর্মসংস্থান কর্মসূচী (এসইপি-বি), ঝটউঙককঐঙ, ২১টি নতুন বেসরকারি প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠানের সাথে চুক্তি স্বাক্ষর করেছে। এই উদ্যোগটি প্রশিক্ষণ প্রদানকারী হিসাবে তাদের ক্ষমতা বৃদ্ধি এবং বাংলাদেশের ব্যক্তিগত প্রশিক্ষণ বাজারে টেকসই ব্যবসায়িক সংস্থাগুলির জন্য ব্যক্তিগত প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটের সাথে প্রোগ্রামের সহযোগিতার চলমান স্কেল-আপের অংশ। এই কর্মসূচীটি ইতোমধ্যে চল্লিশটি বেসরকারি প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটকে প্রতিষ্ঠিত করে গড়ে তুলেছে এবং এদের মধ্যে ৩৮টি সহযোগিতা চুক্তি রয়েছে। নতুন বেসরকারি প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট বাংলাদেশে একটি টেকসই ব্যক্তিগত প্রশিক্ষণ বাজার অর্জনের দিকে একটি মাইলফলক। নতুন সহযোগী প্রতিষ্ঠান গুলো হলো নোয়াখালী টেকনিক্যাল ইনস্টিটিউট, আক্তার টেকনিক্যাল ইনস্টিটিউট, মনুষের জোনো ফাউন্ডেশন, ইউসিইপি বাংলাদেশ, ব্র্যাক, মুসলিম এড ইনস্টিটিউট অফ টেকনোলজি, ইউডো, এশিয়া ট্রেডিং ইন্টারন্যাশনাল, হযরত শাহজালাল পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট, ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট ফ্যাশান টেকনোলজি, ন্যাশনাল পেশাগত ইনস্টিটিউট, বিজিআইএফটি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি ইনস্টিটিউট, গ্রামীণ পুনর্গঠন ফাউন্ডেশন, শেবা মানব কল্যাণ কেন্দ্র, অর্থপূর্ণ অগ্রগতির প্রযুক্তি, সালমান প্রশিক্ষণ কেন্দ্র, সমাজের শান্তি ও অধিকার উন্নয়ন, স্টার বাংলা টেকনিক্যাল ট্রেনিং, এশিয়া টেকনিক্যাল ট্রেনিং সেন্টার, ইউনিভার্সাল বিজনেস অ্যান্ড টেকনোলজি এবং গ্রামীণ শিক্ষা। মঙ্গলবার দিনব্যাপী ঢাকায় বারিধারার অ্যাসকট রেসিডেন্সে নতুন অংশীদারদের জন্য চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠান এবং একটি দিনব্যাপী অনুষ্ঠান অভিযোজন অধিবেশন অনুষ্ঠিত হয়। সুদক্ষের টিম লিডার মিঃ এরলিং পিটারসেন, সিনিয়র ডেভেলপমেন্ট ডিরেক্টর এবং প্রোগ্রাম টিমের সদস্য মিঃ সুরেশ মাহত, গ্র্যান্ড কো-অডিনেটর বিপ্লব কুমার বিশ্বাস, প্রোগ্রাম কো-অডিনেটর তারেক আজিজ, মাহবুবুর আলম, রহমান সাহিদুর, এহসানুল হক, সেলিনা খন্দকার, আসফীক এনায়েত উল্লাহ, অশ্রাফ, খালেদ, নারমিন সায়িদ, মাহবুবুর রহমান। এসময়ে নোয়াখালী টেকনিক্যাল ইনস্টিট্্্উটি ্এর অধ্যক্ষ গিয়াস উদ্দিন মিঠুসহ বিভিন্ন জেলা থেকে ২১ টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তাগণ সাইন ইন অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন। মিঃ এরলিং পিটারসেন নতুন অংশীদারদেরকে স্বাগত জানান এবং একটি ফলপ্রসূ অংশীদারিত্বের জন্য তার আশা প্রকাশ করে বলেন বাংলাদেশের জন্য একটি টেকসই ব্যক্তিগত প্রশিক্ষণ বাজার তৈরি করবে। তিনি অন্যান্য দক্ষতা উন্নয়ন প্রকল্প থেকে সুদক্ষের পার্থক্য উল্ল্যেখ করেছেন। মিঃ এর্লিং পিটারসেন এবং সুরেশ মাহত উভয়ে এই পর্যায়ে জোরালোভাবে বলেন যে প্রতিষ্ঠানগুলেঅ সুদক্ষের সাথে কাজ করছে, যা ব্যক্তিগত প্রশিক্ষণ বাজারের উন্নয়ন, আগের তুলনায় আরো গতিশীল হয়ে ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশ মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন। পরে অংশীদার প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট প্রোগ্রামের মাধ্যমে বিভিন্ন বিষয়ভিত্তিক আলোচনা হয়। সুদক্ষ বাংলাদেশে আন্তর্জাতিক উনয়ন বিভাগের (ডিএফআইডি) এবং সুইস এজেন্সি ফর ডেভলপমেন্ট অ্যান্ড কোঅপারেশন (এসডিসি) এর মাধ্যমে যুক্তরাজ্যের সহায়তায় গত পাঁচ বছরের দক্ষতা প্রশিক্ষণ এবং কর্মসংস্থান কর্মসূচী। এই প্রোগ্রামটি বাংলাদেশ সরকার পরিচালিত কারিগরি শিক্ষা অধিদফতরের (ডিটিই) দ্বারা সম্পাদিত হয়। প্যাল্যাডিয়াম ইন্টারন্যাশনাল, সুইসকন্ট্যাক্ট এবং ব্রিটিশ কাউন্সিলের সাথে কনসোর্টিয়ামে কর্মসূচী বাস্তবায়ন করছে। সুদক্ষ পরীক্ষা-নিরীক্ষা ও স্কেল আপ বাজারে চালিত, রেডিমেড গার্মেন্টস এবং নির্মাণ সেক্টরগুলির মধ্যে মানের দক্ষতা প্রশিক্ষণ সিস্টেম যা প্রশিক্ষণার্থী, ব্যক্তিগত প্রশিক্ষণ প্রদানকারী এবং নিয়োগকর্তাদের প্রশিক্ষণে আরও বিনিয়োগকে উৎসাহিত করবে। সুদক্ষের লক্ষ্য হচ্ছে বেসরকারি মালিকানাধীন প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট এবং শিল্প-ভিত্তিক প্রশিক্ষণের উদ্যোগের সাথে অংশীদারিত্বের মাধ্যমে প্রশিক্ষণের সফল সমাপ্তির পর ৬৫,০০০ দরিদ্র জনগোষ্ঠীর মধ্যে নারী ও সুবিধাবঞ্চিত জনসংখ্যা কর্মসংস্থান নিশ্চিত করা। অংশীদার প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট এবং প্রোগ্রামের অংশীদার কারখানা ইতোমধ্যে চল্লিশ হাজার অশিক্ষিত যুবককে প্রশিক্ষণ দিয়েছে বলে জানান।



মন্তব্য চালু নেই