শিরোনাম:

বিআরটিএর দুর্নীতি দূর করার সুপারিশ

বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটির (বিআরটিএ) সব ধরনের দুর্নীতি রোধের সুপারিশ করেছে সংসদীয় কমিটি। এছাড়া বিআরটিএর শূন্যপদের সংখ্যা, শূন্যপদ পূরণের পদক্ষেপ গ্রহণসহ নানান বিষয়ে আগামী সভায় উপস্থাপনের জন্য কমিটি সুপারিশ করেছে।

বৃহস্পতিবার (১০ জুন) সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির ১০ম বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান, কমিটির সভাপতি মো. একাব্বর হোসেন।

তিনি বলেন, বিআরটিএর আধুনিকায়ন ও সব ধরনের দুর্নীতি দূর করে সেবার মান বাড়ানো দরকার। এজন্য এই সুপারিশ করা হয়। বৈঠকে সড়ক ও মহাসড়কের স্পিডব্রেকার অপসারণ এবং রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যে নীতিমালা তৈরি করে নসিমন, করিমন এবং ইজিবাইককে রেজিস্ট্রেশনের আওতায় আনার সুপারিশ করা হয়েছে।

বৈঠকে সড়ক ও জনপথ অধিদফতরের সিলেট জোনের আওতাধীন চলমান উন্নয়ন প্রকল্পগুলোর সর্বশেষ অবস্থা ও বাস্তবায়ন অগ্রগতির প্রতিবেদন উপস্থাপন এবং বিআরটিএর সেবাগুলো আধুনিকায়নের ভবিষ্যৎ কর্মপরিকল্পনা সম্পর্কে বিশদ আলোচনা করা হয়।

এছাড়া, সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের কোন কোন প্রকল্পে কয়টি বিদেশি প্রতিষ্ঠান বা সংস্থায় কতজন বিদেশি নাগরিক কাজ করছেন তার একটি তালিকা আগামী বৈঠকে উপস্থাপনের জন্য কমিটি মন্ত্রণালয়কে সুপারিশ করে।

বৈঠকে আরও অংশ নেন- কমিটির সদস্য সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের (ভার্চুয়ালি), এনামুল হক, মো. হাসিবুর রহমান স্বপন, মো. আবু জাহির, রেজওয়ান আহম্মদ তৌফিক, মো. ছলিম উদ্দীন তরফদার, শেখ সালাহউদ্দিন, সৈয়দ আবু হোসেন এবং রাবেয়া আলীম।

বৈঠকে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের দুই সচিব, বিআরটিএ ও বিআরটিসির চেয়ারম্যান, পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক, বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবুর রহমান টানেল প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক, সড়ক ও জনপথ অধিদফতরের প্রধান প্রকৌশলীসহ সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয় এবং সংসদ সচিবালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।



মন্তব্য চালু নেই