প্রধান ম্যেনু

বিপিএল উদ্বোধনী দেখার সুযোগ পাবেন মাত্র ৫ হাজার দর্শক!

‘বঙ্গবন্ধু বিপিএল’র উদ্বোধনী অনুষ্ঠান দেশের ইতিহাসের সবচেয়ে জমকালো হবে বলে আগেই ঘোষণা দিয়েছিলেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। তবে যত জমকালো আয়োজনই হোক না কেন, সাধারণ দর্শকদের অল্পসংখ্যকই সরাসরি তা উপভোগের সুযোগ পাবেন। আগামী ৮ ডিসেম্বর মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় স্টেডিয়ামে হবে উদ্বোধনী অনুষ্ঠান।

মঙ্গলবার বিপিএলের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের প্রস্তুতি ও গ্যালারির চেয়ার সংস্কার কাজ পরিদর্শনে এসে বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন বলেন, উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সব মিলে ৮ হাজারের বেশি দর্শককে সুযোগ করে দেওয়াটাই কঠিন হবে। যার নির্দিষ্ট একটা অংশ ভিআইপি অতিথি, বিসিবির কাউন্সিলর, ক্লাব প্রতিনিধি ও বিভিন্ন সংস্থার জন্য বরাদ্দ থাকবে। এ ছাড়া সাধারণ দর্শকদের জন্য ৫ হাজার টিকিট বাইরে ছাড়া হতে পারে বলে ইঙ্গিত দেন বিসিবি সভাপতি।

এসময় উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে কারা পারফর্ম করবেন সেটি বুধবার আনুষ্ঠানিকভাবে জানানো হবে বলে জানান পাপন।

বাস্তবতার কারণেই খুব বেশি দর্শক উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে রাখা সম্ভব হবে না জানিয়ে পাপন বলেন, এখানে মাঠে আমাদের যেহেতু ভিউ নাই। খুব অল্পসংখ্যক দর্শককে এলাও করতে পারব। আমাদের হিসেব অনুযায়ী, অলমোস্ট সব মিলে ৮ হাজারের বেশি করাটাই খুব কঠিন হবে।

পিচ ও মাঠ যাতে নষ্ট না হয় সেদিকে সচেতনতার কথা উল্লেখ করে বিসিবি প্রধান বলেন, মাঠের ভেতরে পিচ নষ্ট হতে পারে বা মাঠ নষ্ট হতে পারে এ রকম কোনো রিস্ক তো আমরা নিতে পারছি না। ওই জায়গাটা যদি বন্ধ থাকে দুই সাইটে অল্প কিছু চেয়ার আমরা ভিআইপিদের জন্য ব্যবস্থা করতে পারব আশা করছি।

সাধারণ দর্শকদের জন্য কি পরিমাণ টিকিট ছাড়া হবে এমন প্রশ্নের উত্তরে নাজমুল হাসান পাপন জানান, যে জিনিসটা হবে… আমাদের তো কাউন্সিলর আছে। তাদের দিতে হবে। ক্লাবগুলোকে দিতে হবে। একটা টুর্নামেন্ট হলে আমরা যেটা করি, এ রকম কোনো অকেশনে হয়তো আগে খেলার জন্য যেভাবে দিয়েছি সে পরিমাণ দিতে পারব না। এবার অত্যন্ত রেসট্রিকটেট। প্লাস বসারও অ্যারেঞ্জ খুব কম। ডিমান্ড যেহেতু বেশি, কোয়ান্টিটি কম পাবে।’

‘কিন্তু ওদের তো দিতে হবে। এ ছাড়া কিছু সংস্থাও আছে যাদের সঙ্গে আমাদের সবকিছু ওতপ্রোতভাবে জড়িত। আমরা চিন্তা করেছি ভেতরে বাইরে মিলিয়ে হাজার পাঁচেক টিকিট হয়তো আমরা সাধারণ দর্শকদের জন্য দিতে পারব।



মন্তব্য চালু নেই