ভারতের জন্য মন কাঁদছে জয়া আহসানের

ভারতের করোনার ভয়াবহ পরিস্থিতি নিয়ে উৎকণ্ঠায় দিন কাটছে অভিনেত্রী জয়া আহসানের। দেশটিতে বসবাসরত মানুষের জন্য মন কাঁদছে এ অভিনেত্রীর। করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউয়ে মৃত্যুপুরীতে পরিণত হয়েছে ভারত।দেশটিতে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ৪ লাখ ১ হাজার ৯৯৩ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এখন পর্যন্ত এটিই বিশ্বে একদিনে সর্বোচ্চ শনাক্তের রেকর্ড। এ নিয়ে দেশটিতে মোট ১ কোটি ৯১ লাখ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছে। ভারতে টানা ৯ দিন ধরে দৈনিক শনাক্তের সংখ্যা তিন লাখেরও বেশি ছিল।

করোনায় বিপর্যস্ত এই ভারতের মানুষের এমন অসহায় অবস্থায় ব্যথিত জয়া আহসান। সামাজিক মাধ্যমে ভারতীয়দের উদ্দেশে প্রার্থনা ও সমবেদনা জানিয়েছেন ‘দেবী’ খ্যাত এই অভিনেত্রী।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে জয়া লিখেছেন, ‘মনটাকে জাগিয়ে রাখা কী যে কঠিন মনে হচ্ছে আজকাল। এত ক্ষয়, এত মৃত্যু, এত হাহাকার! চারদিকে যেন শুধু একটাই চিহ্ন, বিয়োগের। আমাদের কত না আপনজন উষ্ণ হাতের মুঠো ছেড়ে বিদায় নিচ্ছেন। যারা আমাদের আনন্দের সময়ের বন্ধু, বেদনার সময়ের আশ্রয়, বিপদের সময়ের ভরসা, তারা চলে যাচ্ছেন একে একে।’

ঢাকা-কলকাতার চিত্র প্রায় একই, এমনটা উল্লেখ করে জয়া বলেন, ‘চলে গেলেন সৌমিত্র কাকুর মতো মেঘ–সমান উঁচু একজন মানুষ, চলে গেলেন আরও কত কত কবি, লেখক, শিল্পী। ঢাকায়, কলকাতায় একই অন্ধকার ছবি। সমস্ত ভারতেই করোনার ভয়ংকর থাবায় মানুষ বড় নিঃসহায়। মন খারাপ করা নিউজ ফিডের সোশ্যাল মিডিয়া যেন মৃত্যুর প্রান্তর।’

এই সময়ের ভয়, আশঙ্কাকে জয়া চিহ্নিত করেছেন এভাবে- ‘এখন খবরের কাগজ হাতে নেওয়ার আগেই বুক ধক করে ওঠে, আজ জানি আবার কে!’

তবে এই মন্দ সময়ে দাঁড়িয়ে নিজের আশাবাদের কথাও বললেন এই অভিনেত্রী। বললেন, ‘আলো ফিরে আসুক সবার জীবনে। হতাশার এই অন্ধকারে মন যেন পথ না হারায়। তোমার মুক্তি আর আমার মুক্তি আলোয় আলোয়, এই আঁধারে। বন্ধুরা, মন শক্ত করে বাঁধো। সময় আসছে। আবার আমরা একসঙ্গে, হাতে হাত ধরে, প্রান্তরের শেষ রেখার দিকে ছুটব। ওই রেখাটা পার হতে এখনো যে বাকি।



মন্তব্য চালু নেই