মেইন ম্যেনু

ভোলায় গণধর্ষণের শিকার ছাত্রী ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত

ভোলার চরছিপলী গ্রামে ধর্ষণের শিকার ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হয়েছে। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওসিসিতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রোববার রাতে ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হলে তাকে হাসপাতালের ৬ তলার ডেঙ্গু ওয়ার্ডে স্থানান্তর করা হয়। ছাত্রীর ভাই ও মামা এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তারা জানান, ধর্ষণের পর থেকে (১১ আগস্ট রাত ৮টা) রক্তক্ষরণ অব্যাহত থাকায় ভিকটিমকে ভোলা সদর হাসপাতাল থেকে বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে ১২ আগস্ট ভর্তি করা হয়। ১৩ আগস্ট অপারেশন হয়। অবস্থার অবনতি হলে তাকে পরদিন ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওসিসিতে ভর্তি করা হয়।

১৭ আগস্ট ফের অপারেশন করার কথা ছিল। তবে আগের অপারেশনের পর সেলাইতে ত্রুটি থাকায় একই স্থানে নতুন অপারেশর করা সম্ভব হয়নি। এ অবস্থায় রোববার হঠাৎ করে জ্বরে আক্রান্ত হয় ছাত্রী। এখন মানসিকভাবে ভেঙে পড়েছে সে। জ্বর কমে গেলে তাকে মানসিক চিকিৎসা দেয়া হবে। এদিকে ভিকটিমের চিকিৎসা ব্যয়ে এগিয়ে এসেছে কোস্ট ট্রাস্ট নামের একটি বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা।

সংস্থার পক্ষ থেকে ছাত্রীর সঙ্গে থাকা মা, ভাই, মামাসহ পরিবারের সদস্যদের থাকা-খাওয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে। ঈদের আগের রাতে পাশের বাড়ির এক ভাবির কাছে হাতে মেহেদির নকশা করতে গিয়ে ওই বাড়ির ভাড়াটে আলামিনের ঘরে ছাত্রী গণধর্ষণের শিকার হয়। এ ঘটনায় তিনজনকে আসামি করে মামলা করা হয়েছে।

আসামি জামাল রিমান্ডে : ১৬ আগস্ট ভোরে পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে মারা গেছে মামলার আসামি আলামিন ও মনজুর। অপর আসামি মো. জামাল গ্রেফতার হয়েছে। রোববার তাকে আদালতে হাজির করে ১০ দিনের রিমান্ড চাওয়া হয়। আদালত তার ৩ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।



মন্তব্য চালু নেই