ভ্যাকসিনের অপেক্ষায় থাকা সম্ভব নয় : ইতালির প্রধানমন্ত্রী

ঝুঁকি নিয়েই লকডাউন শিথিলের সিদ্ধান্ত নিয়েছে ইতালি। জুনের শুরুতে চালু করা হচ্ছে অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক ফ্লাইট। তুলে নেয়া হচ্ছে যাত্রীদের কোয়ারেন্টাইনে থাকার নিয়ম।

ফেব্রুয়ারিতে করোনার সংক্রমণের পর দেশজুড়ে নিষেধাজ্ঞা জারি করে ইতালি। তবে চলতি মাসের শুরুর দিকে এসব নিষেধাজ্ঞার শর্ত শিথিল করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্যের পর করোনায় সবচেয়ে বেশি মানুষের মৃত্যু হয়েছে ইতালিতে। তবে গত কিছুদিন ধরে আক্রান্ত ও মৃতের হার কমে এসেছে।

বিবিসি জানায়, শনিবার (১৬ মে) সন্ধ্যায় এক টিভি ভাষণে ইতালির প্রধানমন্ত্রী জিউসেপ কোঁতে স্বীকার করেছেন, দেশটি লকডাউন আরো শিথিল করার যে পদক্ষেপ নিতে যাচ্ছে তাতে সুনির্দিষ্ট ঝুঁকি রয়েছে। সংক্রমণের রেখা আবারো ঊর্ধ্বমুখী হতে পারে, এটা মেনে নিতে হবে। তা না হলে আমরা আর কখনোই নতুন করে শুরু করতে পারব না।

তিনি আরও বলেন, ভ্যাকসিন আবিষ্কার হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করা সম্ভব না। তাহলে দেশে অর্থনৈতিক ও সামাজিকে ক্ষেত্রে বড় ভাঙন দেখা দিতে পারে। ইতালিতে প্রবেশ এবং দেশটি থেকে বাইরে যাওয়া, ইতালির মধ্যেই ভ্রমণ আগামী ৩ জুন থেকে চালু হবে। দুই সপ্তাহ কোয়ারেন্টাইনে না গিয়েই ইতালিতে প্রবেশ করতে পারবে ইউরোপীয় পর্যটকরা।

সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে ১৮ মে থেকে দোকানপাট এবং রেস্তোরাঁ খুলে দেয়া হবে। একই দিনে ক্যাথলিক চার্চগুলোও খোলার প্রস্তুতি নিচ্ছে, কিন্তু সেখানে অবশ্যই কঠোরভাবে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে হবে এবং সবাইকে মাস্ক পড়তে হবে। অন্যান্য ধর্মের অনুসারীরাও নিজ নিজ ধর্মীয় আচার পালন করতে পারবে।

শরীরচর্চা কেন্দ্র, সুইমিং পুল এবং খেলাধুলা কেন্দ্রগুলো ২৫শে মে, এবং সিনেমা ও থিয়েটার ১৫ জুন থেকে খুলবে।



মন্তব্য চালু নেই