মেইন ম্যেনু

মিন্নির জামিন স্থগিত চেয়ে রাষ্ট্রপক্ষের আপিল

বরগুনার আলোচিত রিফাত শরীফ হত্যা মামলায় তার স্ত্রী আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নিকে হাইকোর্টের দেওয়া জামিনের বিরুদ্ধে আপিল করেছে রাষ্ট্রপক্ষ।

রবিবার রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী সুফিয়া খাতুন এ আপিল দায়ের করেন। এর আগে মিন্নিকে দেওয়া জামিনের বিষয়ে হাইকোর্টের দেওয়া ৭ পৃষ্ঠার পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশিত হয়েছে। এতে বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের স্বাক্ষর রয়েছে। এখন নিয়ম অনুসারে রায়টি বরগুনার আদালতে যাবে।

এর আগে জামিনের আদেশ হাতে পাওয়ার পর মিন্নির কারামুক্তির বিষয়ে তার আইনজীবী মাহবুবুল বারী আসলাম জানিয়েছিলেন, হাইকোর্ট জামিনের বিষয়ে মৌখিক আদেশ দিয়েছেন। এখন বিচারপতিরা লিখিত রায়ে স্বাক্ষর করবেন। ওই আদেশে কোথায় জামিনের জামানত দাখিল করা হবে, সে বিষয়ও উল্লেখ থাকবে। এরপর ডাকযোগে আদেশটি বরগুনার আদালতে গেলে আমি মিন্নির পক্ষে জামানতনামা দাখিলের আবেদন করব। পরে আদালতের অনুমতি পেলে তা দাখিল করব। জামানতনামা জেলখানায় পৌঁছে গেলে মিন্নির মুক্তি মিলবে। সে ড়্গেত্রে মিন্নির মুক্তি হতে আগামী মঙ্গলবার পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হতে পারে।

গত ২৯ আগস্ট বৃহস্পতিবার মিন্নির জামিনের আদেশ দেয় হাইকোর্ট। তবে জামিনে মুক্ত হওয়ার পর মিন্নিকে গণমাধ্যমের সঙ্গে কথা না বলার নির্দেশ দিয়েছে আদালত।

গত ২৬ জুন বরগুনা সরকারি কলেজের সামনে সন্ত্রাসীরা প্রকাশ্যে রামদা দিয়ে কুপিয়ে গুরুতর আহত করে রিফাত শরীফকে। তার স্ত্রী মিন্নি হামলাকারীদের সঙ্গে লড়াই করেও তাদের দমাতে পারেননি। গুরুতর আহত রিফাত ওই দিনই চিকিৎসা নেওয়া অবস্থায় মারা যান। এ ঘটনায় রিফাতের বাবা দুলাল শরীফ বাদী হয়ে ১২ জনের নাম উল্লেখ করে ও পাঁচ-ছয়জনকে অজ্ঞাত আসামি করে হত্যা মামলা করেন। পরে ১৬ জুলাই মিন্নিকে তার বাবার বাড়ি থেকে পুলিশ লাইনসে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিয়ে যাওয়া হয়। এরপর রাত ৯টায় তাকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়। পরদিন (১৭ জুলাই) মিন্নিকে বরগুনার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করে ৭ দিনের রিমান্ড আবেদন করা হলে বিচারক ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

এরপর কয়েক দফা আবেদন জানালেও নিম্ন আদালতে জামিন মেলেনি মিন্নির। গত ১৮ আগস্ট দ্বিতীয় দফায় জামিন চেয়ে মিন্নি হাইকোর্টে আবেদন করেন।



মন্তব্য চালু নেই