মেইন ম্যেনু

মেয়েকে উত্যক্তের প্রতিবাদে বাবা খুন, এখনো মামলা হয়নি

গোপালগঞ্জে মেয়েকে উত্যক্ত করার প্রতিবাদ করায় বাবা কাজী মাহাবুব (৫০) খুন হওয়ার ২৪ ঘণ্টা পার হলেও এখনো মামলা হয়নি।

এই ঘটনায় এখন পযর্ন্ত কেউ গ্রেপ্তার হয়নি। ঘটনার পর থেকে প্রধান অভিযুক্ত আকাশসহ তার পুরো পরিবার পালিয়ে গেছে। মাহাবুব হত্যার প্রতিবাদে স্ট্যাম্প ভেন্ডার প্রতিবাদ কর্মসূচি পালন করছে।

কাজী মাহাবুব গোপালগঞ্জ সদর সাব রেজিস্ট্রার অফিসের একজন স্ট্যাম্প ভেন্ডার ও হরিদাসপুর ইউনিয়নের প্রাক্তন মেম্বার ছিলেন।

গোপালগঞ্জ সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. সেলিম রেজা জানান, মাহবুব নিহত হলেও এথন পযর্ন্ত তার পরিবারের কেউ থানায় কোনো অভিযোগ দেননি। হত্যাকাণ্ডের মূল আসামি আকাশসহ তার পরিবার পালিয়ে গেছে।

তিনি বলেন, আমরা আসামিদের ধরতে জেলার বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে যাচ্ছি। আশা করি দ্রুত আসামিদের গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় আনতে পারব। ইতিমধ্যে লাশের মায়নাতদন্ত শেষে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

নিহত পরিবারের সদস্যরা জানান, ময়নাতদন্ত শেষে পুলিশ মৃতদেহ তাদের কাছে হস্তান্তর করেছে।

উল্লেখ, গোপালগঞ্জ শহরের পাবলিক হল রোডের বাসিন্দা কাজী মাহবুবের মেয়ে বীণাপাণি সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণির ছাত্রীকে প্রায়ই উত্যক্ত করতো এলাকার আকাশ। এ নিয়ে তাকে বেশ কয়েকবার নিষেধ করলেও তা না শুনে সে মেয়েটিকে আরো বেশি করে উত্যক্ত করে।

এক সময় কাজী মাহবুব বিষয়টি থানা পুলিশে অভিযোগ করেন। অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ বেশ কিছুদিন আগে আকাশকে ধরে নিয়ে যায়। পরে মুচলেকা নিয়ে ছেড়ে দেয়। গত শনিবার রাত ৯টার দিকে গোপালগঞ্জ শহরের পাবলিক হল রোডের নিজ বাসার কাছে দুর্বৃত্তরা তাকে কুপিয়ে মারাত্মক আহত করে পালিয়ে যায়। পরে গত রোববার দিবাগত গভীর রাতে খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় কাজী মাহাবুব মারা যান।



মন্তব্য চালু নেই