শিরোনাম:

বিবিসি বাংলার প্রতিবেদন

যে ৬টি কাজ করলে ৬ বছরেই পিঁয়াজ উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণ হবে বাংলাদেশ

ভারত পিঁয়াজ রফতানি বন্ধ ঘোষণার পর থেকেই অস্থির হয়ে উঠেছিল বাংলাদেশের পিঁয়াজের বাজার। কয়েক দিনের ব্যবধানে পিঁয়াজের দাম দ্বিগুণ হয়ে দাঁড়িয়েছিল। আবার সেই ভারত অল্প কিছু পিঁয়াজ রফতানি করবে, এই খবরে দাম কিছুটা কমেও যেতে দেখা গেছে।

গত বছরেও ভারত যখন পিঁয়াজ রফতানি বন্ধ করার ঘোষণা দিয়েছিল, বাংলাদেশে এই মসলাটির দাম রেকর্ড তিনশ’ টাকা ছাড়িয়ে গিয়েছিল।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বাংলাদেশে পিঁয়াজের মোট চাহিদার প্রায় ৫৭ শতাংশ দেশে উৎপাদিত হয়।
বাকিটা বিদেশ থেকে, প্রধানত ভারত থেকে আমদানি করতে হয়। এ কারণেই পিঁয়াজের ব্যাপারে ভারত কোনও সিদ্ধান্ত নিলে তার প্রভাব পড়ে বাংলাদেশের বাজারে।
এছাড়া মিয়ানমার, মিশর, তুরস্ক, চীন থেকেও বাংলাদেশে অল্প কিছু পিঁয়াজ আমদানি হয়ে থাকে।

কিন্তু কৃষি প্রধান একটি দেশ হয়েও বাংলাদেশ কেন পিঁয়াজ উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণ নয়? দেশের পিঁয়াজের চাহিদা দেশেই কীভাবে মেটানো সম্ভব?

চাহিদা আর উৎপাদনের ফারাক

বাংলাদেশের কৃষি অধিদফতরের তথ্যানুযায়ী, দেশে পিঁয়াজের চাহিদা রয়েছে ৩০ লাখ টনের মতো।

২০২০ সালে বাংলাদেশে পিঁয়াজ উৎপাদন হয়েছে ২৫ লাখ ৫৭ হাজার টন। তবে এই উৎপাদন থেকে গড়ে ২৫-৩০ শতাংশ নষ্ট হয়ে যায়।

ফলে দেশে মোট পিঁয়াজের উৎপাদন গিয়ে দাঁড়ায় ১৮ থেকে ১৯ লাখ টনে। অথচ দেশের বাকি চাহিদা পূরণ করতে প্রায় ১১ লাখ টন পিঁয়াজ আমদানি করতে হয়।

প্রতিবেশী দেশ, সড়ক পথে দ্রুত আনা, কম দাম বিবেচনায় প্রধানত ভারত থেকেই বেশিরভাগ পিঁয়াজ আমদানি করা হয়।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বাংলাদেশের চাহিদার পুরোটা পূরণ করতে হলে দেশেই অন্তত ৩৫ লাখ টন পিঁয়াজের উৎপাদন করতে হবে। তাহলে যেটুকু নষ্ট হবে, তা বাদ দিয়ে বাকি পিঁয়াজ দিয়ে দেশের পুরো চাহিদা পূরণ সম্ভব হবে।

যে কারণে চাহিদার পুরোটা পূরণ করা যায় না

কৃষি প্রধান একটি দেশ হয়েও পিঁয়াজের চাহিদা পূরণ করতে না পারার পেছনে কয়েকটি কারণকে দায়ী করছেন বিশেষজ্ঞরা।

বাংলাদেশে মসলা জাতীয় ফসলের গবেষণা জোরদারকরণ প্রকল্পের পরিচালক ড. শৈলেন্দ্রনাথ মজুমদার। মসলা গবেষণা কেন্দ্রে তিনি পিঁয়াজ চাষের বিষয়গুলো দেখেন।

তিনি বলেন, পিঁয়াজ উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণ হওয়া আমাদের পক্ষে খুব সম্ভব। কৃষকদেরও আগ্রহ আছে। কিন্তু কিছু সমস্যা আছে। পিঁয়াজ উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণ হতে হলে এই সমস্যাগুলোর সমাধান আগে করতে হবে।

তিনি বাংলাদেশে পিঁয়াজের ঘাটতির পেছনে বেশ কিছু কারণ তিনি চিহ্নিত করেছেন। সেগুলো কীভাবে সমাধান করা যায়, এ নিয়ে তার কিছু পরামর্শ রয়েছে।

বীজের অভাব

বাংলাদেশের কৃষকদের জন্য পিঁয়াজের ভালো ও উন্নত বীজের অভাব রয়েছে।

ড. শৈলেন্দ্রনাথ মজুমদার বলেন, “আমাদের দেশে প্রতিবছর মোট ১১০০ টন পিঁয়াজের বীজের দরকার হয়। সরকারিভাবে পাঁচ-ছয় টন, বেসরকারিভাবে ৫০-৬০ টন পিঁয়াজ বীজ উৎপাদিত হয়। বাকিটা কৃষকরা উৎপাদন করেন। ”

পিঁয়াজ উৎপাদন বাড়াতে হলে এই বীজের উৎপাদন এবং সংরক্ষণও বাড়াতে হবে।

এক কেজি পিঁয়াজের বীজে দুই বিঘা জমিতে পিঁয়াজ চাষ করা হয়। একেক বিঘায় গড়ে ৪০ মণ দেশী পিঁয়াজ উৎপাদিত হয়।

গত বছর এক কেজি পিঁয়াজের বীজের দাম আড়াই হাজার টাকা অর্থাৎ এক মণ পিঁয়াজের দাম এক লাখ টাকায় বিক্রি হয়েছে। কিন্তু এই বছর দুই লাখ টাকা দিয়েও এক মণ পিঁয়াজের বীজ পাওয়া যাচ্ছে না। এর প্রভাব পড়ার আশঙ্কা রয়েছে সামনের বছরের উৎপাদনে।

সমন্বিত চাষাবাদ

“ঘাটতি ১০ লাখ টন পূরণ করার জন্য আমাদের বাড়তি জমিরও দরকার হয় না। আমাদের যে ২ লাখ ৩৭ হাজার জমিতে পিঁয়াজ চাষ হয়, সেখানেই ভালো জাত আর উৎপাদন কলাকৌশলে পরিবর্তন আনলে, কৃষকদের একটু প্রশিক্ষণ দিতে পারলেই চার-পাঁচ লাখ টন উৎপাদন বাড়ানো যায়”, বলছেন ড. মজুমদার।

“সেই সঙ্গে আমাদের অন্যান্য ফসলের সঙ্গে, যেমন আখের ক্ষেতে, ভুট্টার ভেতর, আদা-হলুদের সঙ্গে পিঁয়াজ চাষ করা যায়। গরমের সময় কচুমুখীর ক্ষেতে চাষ করা যায়। ”

তারা এখন পিঁয়াজ চাষের উপযোগী এলাকাগুলোর কৃষকদের পরামর্শ দিচ্ছেন, তারা যেন অন্য ফসলের সঙ্গে পিঁয়াজও চাষ করেন।

দামের ওঠানামা

ড. মজুমদার বলছেন, পিঁয়াজ চাষাবাদ বাড়ানোর ক্ষেত্রে আরেকটি বড় সমস্যা হলো এর দামের ওঠানামা। কখনও কৃষক চাষাবাদ করে লোকসানের মুখে পড়েন। আবার কখনও অতিরিক্ত দামের কারণে বীজ পিঁয়াজ বিক্রি করে দেন।

গতবছর দাম বেড়ে যাওয়ার কারণে অধিকাংশ কৃষক অক্টোবর মাসে তাদের পিঁয়াজ বীজ বিক্রি করে দিয়েছেন। ফলে অনেক কৃষক এই বছর বীজ খুঁজে পাচ্ছেন না।

আবার ২০১৯ সালের এপ্রিল মাসে পিঁয়াজের মন ছিল ৪০০ টাকা, যেখানে একমণ উৎপাদন করতে তাদের খরচ হয়েছে সাড়ে ৬০০ টাকা। ফলে লোকসান হওয়ায় স্বাভাবিকভাবেই অনেক কৃষক আর পিঁয়াজ চাষে উৎসাহিত হন না।

তিনি বলছেন, “গতবছর ডিসেম্বরে ফরিদপুর এবং পাবনার কৃষকদের সঙ্গে আমরা দুইটা কর্মশালা করেছিলাম। তারা বলেছেন, আমরা ৩৫ কেন, ৪০ লাখ টন পিঁয়াজ উৎপাদন করে দেব, আপনারা আমাদের দামটা ঠিক করে দেন। ”

ড. মজুমদার মনে করেন, কৃষকের চাষাবাদের খরচ বিবেচনায় রেখে মিয়ানমারের মতোও পিঁয়াজের সর্বনিম্ন ও সর্বোচ্চ একটি দাম নির্ধারণ করে দেওয়া উচিত, যাতে কৃষকরা ক্ষতিগ্রস্ত না হয়। লাভজনক হলে প্রতিবছরই কৃষকরা পিঁয়াজ চাষে উৎসাহিত হবেন, ঘাটতিও কমে আসবে।

বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইন্সটিটিউট, গাজীপুরের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. রুম্মান আরা বলছেন, পিঁয়াজের দামটা যাতে সহনীয় থাকে, সেজন্য দেশে একটা নীতি নেওয়া দরকার, যাতে কৃষক এই ফসল উৎপাদন করে হতাশ হয়ে না পড়েন।

সংরক্ষণ ব্যবস্থা

বাংলাদেশে শুধুমাত্র পিঁয়াজ সংরক্ষণের জন্য কোনও কোল্ড স্টোরেজ নেই। কিন্তু সারা বছরের চাহিদা মেটানোর মতো পিঁয়াজ উৎপাদিত করতে হলে সেটা সংরক্ষণের ব্যবস্থা রাখতে হবে।

বর্তমানে কৃষকরা নিজেদের বাড়িতে দেশীয় পদ্ধতিতে সংরক্ষণ করে থাকেন। কিন্তু তাতে পিঁয়াজ নষ্ট হওয়ার হারটা বেশি হয়।

পিঁয়াজের জন্য ১২ থেকে ২০ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেডের তাপমাত্রা দরকার। আর্দ্রতা থাকতে হবে ৩৫ থেকে ৪৫ এর মধ্যে। ফরিদপুর, পাবনা, রাজবাড়ীর মতো যেসব স্থানে পিঁয়াজের আবাদ বেশি হয়, সেখানে এরকম অনেকগুলো কোল্ড স্টোরেজ থাকলে কৃষকরা পিঁয়াজটা সংরক্ষণ করে রাখতে পারতেন। ফলে তারা বেশি করে উৎপাদন করতেন।

এখন যেভাবে সংরক্ষণ করা হয়, তাতে অনেক সময় পিঁয়াজে গাছ গজিয়ে যায়।

“ঠিকভাবে সংরক্ষণ করতে পারলে কৃষক দামও পেতেন, বাড়তি চাষাবাদে উৎসাহিত হতেন,” বলছেন বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইন্সটিটিউট, গাজীপুরের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. রুম্মান আরা।

কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, আপাতত বিশেষ একটি কোল্ড স্টোরেজ এবং পরীক্ষামূলক গ্রিন হাউজ করার পরিকল্পনা করছে সরকার।

গ্রীষ্মকালীন পিঁয়াজ উৎপাদন

বাংলাদেশের কৃষি গবেষণা ইন্সটিটিউটের মসলা গবেষণা কেন্দ্র বর্তমানে পিঁয়াজের ছয়টি জাত অবমুক্ত করেছে। তার মধ্যে তিনটি জাত গ্রীষ্মকালীন পিঁয়াজের জাত। সেগুলোর ভেতর বারি-৫ এর ওপর গবেষণাকারীরা সবচেয়ে বেশি জোর দিচ্ছেন।

মার্চ মাসে রোপণ করে জুন-জুলাই মাসে অথবা আগস্ট মাসে রোপণ করে নভেম্বর-ডিসেম্বর মাসে এসব পিঁয়াজের ফসল পাওয়া যায়।

ড. রুম্মান আরা বলছেন, “এসব গ্রীষ্মকালীন পিঁয়াজ চাষাবাদ করলে সেটা চাহিদা বড় একটি অংশ যোগান দিতে পারে। কারণ এসব ফসল যখন উঠবে, তখন পিঁয়াজের দামও বেশি থাকে। ফলে কৃষকও লাভবান হবেন। আবার সারা বছর ধরেই দেশে পিঁয়াজের উৎপাদন, যোগান অব্যাহত থাকবে। ”

কিন্তু সংরক্ষণ ক্ষমতা কিছুটা কম হওয়ায় এসব পিঁয়াজের জাত এখনও কৃষকদের কাছে ততটা জনপ্রিয়তা পায়নি। তবে গ্রীষ্মকালীন পিঁয়াজের চাষাবাদ আস্তে আস্তে বাড়ছে বলে কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

আরেকটা পিঁয়াজ হচ্ছে মুড়িকাটা পিঁয়াজ, যেটা অক্টোবরে লাগালে ডিসেম্বর নাগাদ ফসল পাওয়া যায়। কিন্তু এই পিঁয়াজের এখনও অনেক অভাব রয়েছে।

সরকারিভাবে এই বছর সাতশ’ কেজি গ্রীষ্মকালীন পিঁয়াজের বীজ সরবরাহ করা গেছে। কিন্তু কৃষকদের কাছে এই ধরণের বীজের চাহিদা রয়েছে এক লাখ কেজির বেশি।

গ্রীষ্মকালীন পিঁয়াজের দাম বেশি পাওয়ায় কৃষকরা সবই বিক্রি করেন দেন, বীজের জন্য সংরক্ষণ করেন না। আবার সরকারি তরফেও এতো বেশি পিঁয়াজ বীজের চাষ করা সম্ভব হয় না।

“বেসরকারি কোম্পানিগুলোকে এগিয়ে আসতে হবে, সেই সঙ্গে কৃষকদেরও নিজেদের বীজ তৈরি করা শুরু করতে হবে,” কর্মকর্তারা বলছেন।

চরের জমি অন্তর্ভুক্ত করা

গবেষকরা বলছেন, বাংলাদেশে বিস্তীর্ণ চর এলাকা রয়েছে। সেসব জমি যদি পিঁয়াজ উৎপাদনে কাজে লাগানো যায়, তাহলেই পিঁয়াজের বাড়তি চাহিদার ১০ লাখ টনের পুরোটা উৎপাদন করা সম্ভব।

“তবে সেজন্য পিঁয়াজ উৎপাদনের সমস্যাগুলো সমাধান করতে হবে। তাহলেই কৃষকরা পিঁয়াজ চাষাবাদে আগ্রহী হবেন,” বলছেন ড. শৈলেন্দ্রনাথ মজুমদার।

সব সমস্যা দূর হলে ঘাটতি মেটাতে কতদিন লাগবে?

গবেষকরা বলছেন, পিঁয়াজ চাষাবাদে বীজের অভাব, সংরক্ষণ ব্যবস্থা, দাম নির্ধারণ- ইত্যাদির মাধ্যমে হয়তো একবছরেই রাতারাতি ঘাটতি পূরণ হবে না। কিন্তু সঠিক নীতি ও পরিকল্পনা আর উদ্যোগ কয়েক বছরের মধ্যেই পিঁয়াজের ঘাটতি শূন্যে নামিয়ে নিয়ে আসতে পারে।

ড. শৈলেন্দ্রনাথ মজুমদার বলছেন, “দামটা যদি স্থিতিশীল রাখা যায়, অন্তত উৎপাদন মৌসুমে ৩০ থেকে ৪০ টাকার মধ্যে রাখা যায়, সংরক্ষণ ব্যবস্থা তৈরি করা যায় আর শীতকালীন ও গ্রীষ্মকালীন বীজের পর্যাপ্ত যোগান দেওয়া যায়, তাহলে আগামী পাঁচ ছয় বছরের মধ্যে আমরা পিঁয়াজ উৎপাদনে পুরোপুরি স্বয়ংসম্পূর্ণ হয়ে উঠতে পারব। ”



মন্তব্য চালু নেই