মেইন ম্যেনু

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন শুরু ২২ আগস্ট, প্রথম দফায় যাচ্ছে ৩৫৪০

নির্যাতনের মুখে মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসন শুরু হবে ২২ আগস্ট। বৃহস্পতিবার (১৫ আগস্ট) দুই দেশের কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে বার্তা সংস্থা রয়টার্স এ খবর প্রকাশ করে।

মিয়ানমারের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে মিনট থু রয়টার্সকে জানান, ২২ আগস্ট ৩ হাজার ৫৪০ জন রোহিঙ্গাকে ফিরিয়ে নেয়া হবে।

বাংলাদেশ থেকে পাঠানো ২২ হাজারের তালিকা থেকে প্রাথমিকভাবে এ পরিমাণ রোহিঙ্গা মিয়ানমার ফিরিয়ে নেবে বলে জানান তিনি।

জাতিগত নিধন ও গণহত্যার প্রেক্ষাপটে বাংলাদেশে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে আন্তর্জাতিক চাপের মুখে ২০১৮ সালের জানুয়ারিতে বাংলাদেশ-মিয়ানমার প্রত্যাবাসন চুক্তি সম্পন্ন হয়। একই বছরের ৬ জুন নেপিদোতে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন নিয়ে মিয়ানমার ও জাতিসংঘের সংস্থাগুলোর মধ্যেও সমঝোতা চুক্তি হয়। চুক্তি অনুযায়ী গত বছরের ১৫ নভেম্বর রোহিঙ্গা প্রত্যর্পণের তারিখ নির্ধারণ করা হয়। তবে আবারও হামলার মুখে পড়ার আশঙ্কায় রোহিঙ্গারা নিজ দেশে ফিরতে অস্বীকৃতি জানানোয় ব্যর্থ হয় ওই উদ্যোগ।

রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে নতুন করে উদ্যোগের অংশ হিসেবে গত মাসে কক্সবাজারের রোহিঙ্গা শিবির পরিদর্শন করে মিয়ানমারের পররাষ্ট্র সচিব মিন্ট থোয়ের নেতৃত্বাধীন একটি প্রতিনিধি দল। ১৫ সদস্যের দলটি দুই দিন ধরে রোহিঙ্গাদের সঙ্গে আলোচনা ও বৈঠক করে। এসব বৈঠকে রোহিঙ্গাদের তরফে ফিরে যাওয়ার ক্ষেত্রে মিয়ানমারের নাগরিকত্ব ও চলাফেরায় স্বাধীনতার দাবি পুনর্ব্যক্ত করা হয়।

এর আগে গত বছরের নভম্বরে প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া বাতিল হয়ে যায় বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদের প্রতিবাদের কারণে। তারা নাগরিকত্বসহ অন্য সব অধিকার ফিরিয়ে দেয়া এবং আবার নিপীড়ন হবে না এমন নিশ্চয়তার পর প্রত্যাবাসনের দাবি জানায়।

রয়টার্সকে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে এক জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা জানান, বাংলাদেশ চায় নিরাপদ ও স্বেচ্ছা এবং স্থায়ী প্রত্যাবাসন।

মিয়ানমারের সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের পরিচালক মিন থেইন বলেন, বাংলাদেশ সীমান্তে কিছু শরণার্থী কেন্দ্র নির্মাণ করা হয়েছে। আমরা প্রস্তুত আছি।

উল্লেখ্য,২০১৭ সালের আগস্টে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর ওপর মিয়ানমার সেনাবাহিনীর দমন-পীড়ন শুরু হলে ৭ লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়। এর আগে থেকেই ৪ লাখ রোহিঙ্গা বাংলাদেশে অবস্থান করছে।



মন্তব্য চালু নেই