মেইন ম্যেনু

শ্বশুরবাড়িতেই স্ত্রীকে খুন করল স্বামী

ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে স্বামীর ছুরিকাঘাতে নিহত হয়েছেন লাকি আক্তার (২২) নামে এক গৃহবধূ। বুধবার সকালে পৌর সদরের দত্তপাড়া গ্রামে এই ঘটনা ঘটেছে। সে ওই গ্রামের মতিউর রহমানের মেয়ে। এ ঘটনায় স্থানীয়রা স্বামী সবুজ মিয়াকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেছে।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, ময়মনসিংহের তারাকান্দা উপজেলার বিসকা ইউনিয়নের মেছেরা গ্রামের আব্দুল কাদিরের ছেলে সবুজ মিয়ার সঙ্গে ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলার দত্তপাড়া গ্রামের মতিউর রহমানের মেয়ে লাকী আক্তারের চার বছর আগে পারিবারিক ভাবে বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে তাদের মধ্যে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে প্রায়ই কলহ হতো।

তারা আরও বলেন, কয়েকদিন আগে লাকী গাজীপুরে খালার বাড়িতে বেড়াতে যায়। মঙ্গলবার (১৭ সেপ্টেম্বর) সবুজ মিয়া তাকে সেখান থেকে শ্বশুরবাড়ি ঈশ্বরগঞ্জে নিয়ে আসেন। সেই থেকে তাদের মধ্যে বাকবিতণ্ডা চলছিল। বুধবার সকালে কথাকাটাকাটির এক পর্যায়ে স্ত্রীকে উপর্যুপরি ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে সবুজ। এ সময় লাকীর চিৎকারে বাড়ির সদস্যরা এসে সবুজকে ধরে পুলিশে সোপর্দ করে। এরপর তারা লাকীকে গুরুতর আহত অবস্থায় ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। এ ঘটনায় এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে। এই দম্পতির ঘরে আড়াই বছরের একটি কন্যা রয়েছে।

নিহতের মা দিলুয়ারা বেগম জানান, চার বছর আগে মেয়েকে বিয়ে দিয়েছে। সেই থেকে বিভিন্ন কারণে লাকীকে মারধরসহ নির্যাতন করত সবুজ। মাঝে মধ্যে মেরে ফেলার হুমকিও দিত। আজ আমার মেয়েকে সে সত্যিই মেরে ফেলেছে। আমি এই হত্যার সঠিক বিচার চাই।

ঈশ্বরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আহমেদ কবীর বলেন, মূলত পারিবারিক কলহের জেরে এই হত্যাকাণ্ড ঘটেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। পুলিশ ঘাতক স্বামী সবুজ মিয়াকে আটক এবং হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত ছুরিটি জব্দ করেছে। ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ (মমেক) হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।



মন্তব্য চালু নেই