শিরোনাম:

‘সংবাদমাধ্যমের প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী হতে পারে ফেসবুক’

বিশ্বের সবচেয়ে বড় যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুক। যোগাযোগ ও তথ্য বিনিময়ের এই মাধ্যম এখন সংবাদেরও বড় উৎস হয়ে দাঁড়িয়েছে।

বলা হচ্ছে, ফেসবুক হতে পারে আগামী দিনের মূল ধারার গণমাধ্যমের প্রধানতম প্রতিদ্বন্দ্বী। কর্তৃপক্ষও তাদের বিস্তৃতিতে সংবাদ পরিবেশনের ওপরই আরও গুরুত্ব দিচ্ছে।

সংবাদমাধ্যমের জন্য সামাজিকমাধ্যম এখন কতটা হুমকি— তা নিয়ে গবেষণা চলছে ঢের। অনেক খবরই এখন গণমাধ্যমে আসার আগেই চলে যায় সোস্যাল সাইটগুলোতে।

তবে সেক্ষেত্রে রয়েছে সঠিক তথ্যের অভাব। কিছু সঠিক তথ্যের পাশাপশি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আমরা পাই অনেকাংশেই অসত্য তথ্য, যা সৃষ্টি করে বিভ্রান্তি।

এ অবস্থায় ফেসবুক তাদের ফিচারে সংবাদের বিস্তৃতি বাড়াচ্ছে। যা কার্যকর হলে মূল ধারার গণমাধ্যমের জন্য একটি চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়াবে। তাই আরও দায়িত্বশীল হওয়ার পরামর্শ মেইন-স্ট্রিম মিডিয়াগুলোকে।

সেই সঙ্গে মেইন-স্ট্রিম মিডিয়াগুলো, তাদের কনটেন্ট ফেসবুকে দিয়ে আয় করছে এখন, এই সংখ্যাও আরও বাড়ানোর তাগিদ বিশ্লেষকদের।

ফেসবুকের প্রধান কার্যালয় যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ার মেনলো পার্কে। নিরিবিলি এ শহর থেকেই সারাবিশ্ব নিয়ন্ত্রণ করছে মার্ক জাকারবার্গের প্রতিষ্ঠানটি। মার্কিন মুলুকে করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ায় এখানে প্রতিদিন ঘুরতে আসেন শত শত মানুষ।

পৃথিবীব্যাপী ৩০০ কোটির মতো ফেসবুক ব্যবহারকারী রয়েছেন। ২০০৪ সালের ৪ ফেব্রুয়ারি প্রতিষ্ঠিত হয় ফেসবুক। ক্যালিফোর্নিয়ার পাশাপাশি কানাডা, ব্রিটেনসহ বিশ্বের বড় কয়েকটি দেশে বড় পরিসরে কার্যালয় স্থাপন করেছে তারা। আর ছোট দেশগুলোতেও রয়েছে আঞ্চলিক অফিস।



মন্তব্য চালু নেই