মেইন ম্যেনু

সই ও সিল নকল করে টেস্ট রিপোর্ট, জানেন না ডাক্তার

চিকিৎসকের স্বাক্ষর নকল ও সিলে মনগড়া মন্তব্য লিখে এক্সরে রিপোর্ট অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ রকম রিপোর্ট দিচ্ছেন ফরিদপুরের মোহাম্মদ ডিজিটাল ডায়াগনস্টিক সেন্টার। ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের উত্তর পাশে অবস্থিত এ ডায়াগনস্টিক সেন্টার থেকে গত ২২ আগস্ট ইমান মোল্লা নামের এক রোগীকে এই ভুয়া রিপোর্টটি দেওয়া হয়।

এদিকে ডিজিটাল ডায়াগনস্টিক সেন্টারের প্যাডে নিজের সিল ও স্বাক্ষর দেখে হতভম্ব হয়েছেন ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের রেডিওলজি বিভাগের এসিসট্যান্ট প্রফেসর ডা. তৌরিত রেজা রিসলু।

জানা গেছে, ইমান মোল্লা নামের এক রোগীকে বুকের এক্সরে করার জন্য ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে বলা হলে তিনি ওই ডায়াগনস্টিক সেন্টারে যান। এক্সরে শেষে রিপোর্টটি হাসপাতালে জমা দিলে বিশেষজ্ঞ চিকিৎকের স্বাক্ষর ও সিল দেখে সন্দেহ হয় সংশ্লিষ্টদের। পরে ওই রিপোর্ট সিলে নাম থাকা ডাক্তার তৌরিত রেজা রিসলুকে দেখানো হলে স্বাক্ষর ও সিল নকল করার বিষয়টি পরিষ্কার হয়।

ডাক্তার তৌরিত রেজা জানান, সোমবার (২৬ আগষ্ট) ওই নকল সিল ও স্বাক্ষর সম্বলিত টেস্ট রিপোর্টটি আমার হাতে আসে। আমার নামের সিল ও নকল স্বাক্ষর করা ওই টেস্ট রিপোর্টে উল্লেখিত রোগীর সাথে আমার সাক্ষাত পর্যন্ত হয়নি। নামের সিল ও স্বাক্ষর নকল করে মোহাম্মদ ডায়াগনস্টিক সেন্টার বেআইনি কাজের সাথে গুরুতর অন্যায় করেছে। এ বিষয়ে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সিভিল সার্জন বরাবর অভিযোগ করা হবে।

ফরিদপুরের সিভিল সার্জন ডা. এনামুল হক জানান, কেবলমাত্র সুনির্দিষ্ট অভিযোগ পেলে ওই ডায়াগনস্টিক সেন্টারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এদিকে ডায়াগনস্টিক সেন্টারের প্যাডে উল্লেখিত মোবাইল ফোন নম্বরে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তা বন্ধ থাকায় যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।



মন্তব্য চালু নেই