মেইন ম্যেনু

সঙ্কটের দুই বছর : কক্সবাজারে লাখো রোহিঙ্গার সমাবেশ

সঙ্কটের দুই বছর পূর্তিতে অধিকার নিয়ে স্বদেশে ফিরতে ও দোষীদের বিচারের দাবিতে সমাবেশ করেছে লাখো রোহিঙ্গারা।

রোববার সকাল ৯টায় উখিয়ার কুতুপালংয়ের ক্যাম্প এক্স-৪ এ সমাবেশ শুরু হয়ে চলে দুপুর ২টা পর্যন্ত। নিজেদের অধিকার আদায়ে ঐক্যবদ্ধ থাকার পাশাপাশি দুই বছর অতিবাহিত হওয়ার পরও স্বদেশে ফিরতে না পারায় বিশ্ববাসী ও মিয়ানমারকে দুষছেন রোহিঙ্গারা। আর আশ্রয় দেয়া বাংলাদেশের প্রতি শোকরিয়া জ্ঞাপন করেন তারা।

২০১৭ সালের ২৫ আগস্ট মিয়ানমার সেনাবাহিনীর নির্যাতনে পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয় লাখ লাখ রোহিঙ্গা। আর সেই সঙ্কটের দুই বছর পূর্তি রোববার।

সেই ২৫ আগস্টের দুঃসহ স্মৃতি মনে করতে রোহিঙ্গারা আয়োজন করে সমাবেশ। আর তাই সকাল থেকে বিভিন্ন ক্যাম্প থেকে আসা রোহিঙ্গাদের পদচারণায় কানায় কানায় পরিপূর্ণ হয়ে ওঠে সমাবেশস্থল। তিনটি পাহাড় ও একটি বিশাল মাঠ ভরে যায় লাখো রোহিঙ্গায়। রোহিঙ্গাদের দাবি, সঙ্কটের দুই বছর অতিবাহিত হতে চললেও তাদের স্বদেশে ফেরাতে আন্তর্জাতিক সংস্থা ও মিয়ানমার ভূমিকা এখনও প্রশ্নবিদ্ধ।

ডি ৫ ব্লকের রোহিঙ্গা আমির উল্লাহ বলেন, দুই বছর ধরে আমরা পরবাস জীবন যাপন করছি। নিজ ভিটে মাটিতে এখনো ফিরতে পারেনি। বিশ্বের সবাই আমাদের দেখতে আসে, কিন্তু কেউ এখনো পর্যন্ত আমাদের নিজদেশে ফেরাতে উদ্যোগ নেয়নি। এতে মিয়ানমারের ব্যর্থতার সাথে সাথে বিশ্ববাসী ব্যর্থ।

সমাবেশে আসা আরেক রোহিঙ্গা শফি আলম বলেন, বাংলাদেশ এত দিন আমাদের আশ্রয় দিয়েছে, তাই তাদের প্রতি আমরা শোকরিয়া জ্ঞাপন করি। পাশাপাশি আমাদের যারা নির্যাতন করে এদেশে পাঠিয়ে দিয়েছে তাদের বিচার চাই।

আরাকান রোহিঙ্গা সোসাইটি চেয়ারম্যান মাস্টার মুহিব উল্লাহ বলেন, অন্য কারো সাথে নয়, মিয়ানমারের সাথে সংলাপের মাধ্যমে নিজদেশে ফিরতে রাজি।

উখিয়ার মধুরছড়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পের ইনচার্জ মাইন উদ্দিন জানান, সমাবেশকে কেন্দ্র করে সব ধরণের নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। পুলিশের পাশাপাশি সেনাবাহিনী, বিজিবি, আনচার ব্যাটালিয়ন টহল দিচ্ছে।

দুই বছর পূর্তি উপলক্ষে শুধু কুতুপালং ক্যাম্প নয়, বালুখালী ও টেকনাফ ক্যাম্পগুলোতে চলে নানা কর্মসূচি ও সমাবেশ।

উল্লেখ্য, ২৫ আগস্ট রোহিঙ্গা সঙ্কটের দুই বছর পূর্তি। ২০১৭ সালের এ দিনে ভয়াবহ হত্যাযজ্ঞের ঘটনা ঘটে মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে। এরপর পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেন রোহিঙ্গারা। বর্তমানে বাংলাদেশে আশ্রিত রোহিঙ্গার সংখ্যা ১১ লক্ষাধিক।



মন্তব্য চালু নেই