মেইন ম্যেনু

সড়ক আগের মতোই বিশৃঙ্খল : থামছেই না বেপরোয়া ড্রাইভিং

কোনোভাবেই শৃঙ্খলায় আনা যাচ্ছে না রাজধানীর গণপরিবহন। বাস স্টপেজ নির্দিষ্ট করে দেয়া ছাড়াও সড়কে যত্রতত্র যাত্রী ওঠানামা বন্ধে করে দেয়া হয়েছে নির্দিষ্ট লাইন। এরপরও ঠেকানো যাচ্ছে না বেপরোয়া ড্রাইভিং। আইনঅমান্যকারী বাস কোম্পানি, মালিক ও বাসের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া দাবি বিশেষজ্ঞদের। আর ট্রাফিক পুলিশ বলছেন, সচেতনতার বিকল্প নেই।

গোটা শহরটাই যেন বাস স্টপেজ। যেখানে-সেখানে গাড়ি ইচ্ছামত থামছে, যাত্রীরাও উঠছেন খেয়ালখুশিমতো। আবার যাত্রীছাউনি থাকলেও তা উপেক্ষা করেই দাঁড়িয়ে আছেন যাত্রীরা।

এখানেও অসুস্থ প্রতিযোগিতায় মেতে উঠছে গণপরিবহন। যার সব শেষ বলি হলেন বিআইডব্লিউটিএ’র কর্মকর্তা কৃষ্ণা রায়।

এ বিষয়ে হেলপাররা বলেন, যাত্রীরা রাস্তাতেই দাঁড়িয়ে থাকেন। এখান থেকেই তাদের গাড়িতে তুলতে হয়।

৩ এপ্রিল ২০১৮। দুই বাসের চাপায় হাত হারিয়ে পরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান রাজিব।

২৮ জুলাই ২০১৮। রমিজ উদ্দিন কলেজের দুই শিক্ষার্থী দিয়া আক্তার মিম ও আব্দুল করিম সজিব বাসচাপায় নিহত হন।

সম্প্রতি শৃঙ্খলা ফেরাতে বে পদ্ধতি চালু করেছে ট্রাফিক বিভাগ। তবে দেড় শতাধিক সিটি বাস স্টপেজ হলেও বে করা হয়েছে অল্প কয়েকটি ট্রানজেকশনে।

ট্রাফিক পুলিশের কর্মকর্তা সালাহ উদ্দিন বলেন, যাতে যাত্রীরা সুবিধা পান সেজন্য প্লাস্টিক কন দিয়ে লেন করে দেয়া হয়েছে।

সমন্বিত বাস্তবায়নে সড়ক দুর্ঘটনা ও যানজট অনেকটাই কমে আসবে বলে মনে করে ট্রাফিক বিভাগ।

ডিএমপি’র ট্রাফিক বিভাগের অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার মফিজ উদ্দিন আহম্মেদ বলেন, বাসগুলো ফুটপাত ঘেঁসে দাঁড়াবে। সিএনজি ও অটোরিকশা এরমধ্যে থাকবে না।

তবে সুফল পেতে বাস মালিকদের জবাবদিহিতার আওতায় আনার তাগিদ দিলেন বিশেষজ্ঞরা।

বুয়েটের সড়ক দুর্ঘটনা গবেষণা ইনস্টিটিউটের সহকারী অধ্যাপক কাজী মো. সাইফুন নেওয়াজ বলেন, আড়িফেরি গান দিয়ে দূর থেকে বাসের সকল তথ্য নিয়েই মামলা দিয়ে দেয়া সম্ভব। যে বাস নিয়ম মানবে না সেটা মালিককে জানাতে হবে এবং এরপর মালিক কী পদক্ষেপ নিলেন সেটা ট্রাফিক পুলিশকে জানাতে হবে।

রাজধানীর প্রতিটি সিটি স্টপেজে এমন বে তৈরি করে বাস দাঁড়ানোর ব্যবস্থা করা গেলে সেখান থেকেই বাসে চড়তে বাধ্য হবেন যাত্রীরা । প্রয়োজনে সিসি ক্যামেরা অথবা পুলিশ চেকপোস্ট বসাতে হবে। তাহলে অন্তত বিশৃঙ্খলভাবে যাত্রী ওঠানামার কারণে সড়কে আর কোনো তাজাপ্রাণ ঝরবে না বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা।



মন্তব্য চালু নেই