প্রধান ম্যেনু

সবজির বাজারে কিছুটা স্বস্তি, পেঁয়াজে অস্বস্তি

শীতকালীন শাক-সবজি ফুলকপি, পাতাকপি, মুলা, শালগম, শিম, পালংশাক, মুলাশাক, সরিষা শাকের সরবরাহ বাড়ায় রাজধানীর বাজারগুলোতে কিছু কিছু সবজির দাম কমতে শুরু করেছে। ইতোমধ্যে অর্ধেকে নেমেছে শিমের দাম। পাকা টমেটোর দাম কেজিতে কমেছে ৩০ টাকার বেশি। তবে পেঁয়াজ স্বস্তি দিচ্ছে না। পেঁয়াজের কেজি এখনও ২০০ টাকার ওপরে রয়েছে।

শুক্রবার রাজধানীর কারওয়ানবাজার, রামপুরা, মালিবাগ হাজীপাড়া, খিলগাঁও অঞ্চলের বিভিন্ন বাজার ঘুরে এমন তথ্য পাওয়া গেছে।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, শীতকালীন শাক-সবজির সরবরাহ বাড়ায় দাম কমতে শুরু করেছে। সামনে সরবরাহ আরও বাড়বে। ফলে সবজির দাম আরও কমবে।

এদিকে কিছু সবজির দাম কমলেও এখনও টমেটো, ফুলকপি, বাঁধাকপি, বরবটি, শসা, গাজরের দামে স্বস্তি মিলছে না। এ সবজিগুলো এখনও চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে। বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা যায়, খুচরা পর্যায়ে প্রতি কেজি শিম ৫০-৬০ টাকার মধ্যে পাওয়া যাচ্ছে। আর কারওয়ানবাজারে পাইকারিতে শিমের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৪০ টাকা।

কারওয়ানবাজারের ব্যবসায়ী আলামিন বলেন, গত সপ্তাহে যে শিমের পাল্লা (৫ কেজি) ৩০০ টাকা বিক্রি করেছি, আজ তা ১৮০-২০০ টাকা পাল্লা বিক্রি করছি। সামনে শিমের দাম আরও কমবে। কিছু দিনের মধ্যেই শিমের পাল্লা ৫০ টাকায় চলে আসবে।

বাজারটির আর এক ব্যবসায়ী আলম বলেন, সপ্তাহের ব্যবধানে টাকা টমেটোর দাম কমেছে। এর কারণ বাজারে এখন কাঁচা টমেটোর পাশাপাশি দেশি পাকা টমেটোও আসছে।

তিনি জানান, গত সপ্তাহে ৪০০ টাকা পাল্লা বিক্রি হওয়া টমেটো এখন ২৮০-৩০০ টাকার মধ্যে বিক্রি হচ্ছে। এ হিসাবে কেজিতে টমেটোর দাম কমেছে ২০-২৫ টাকা।

এদিকে খুচরা বাজারে প্রতি কেজি পাকা টমেটো বিক্রি হচ্ছে ৭০-৮০ টাকা, যা গত সপ্তাহে ছিল ১০০-১২০ টাকা। অর্থাৎ সপ্তাহের ব্যবধানে খুচরা টমেটোর দাম কমেছে ৩০ টাকার ওপরে।

খিলগাঁওয়ে ব্যবসায়ী খায়রুল বলেন, শিম, টমেটো, মুলা, শালগমের দাম কমতে শুরু করেছে। এখন দিন যত যাবে, আস্তে আস্তে সব ধরনের সবজির দাম কমবে। অনেক সবজি ৩০ টাকা কেজির মধ্যে পাওয়া যাবে।

বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা যায়, বাজারে নতুন আসা গোল আলুর কেজি বিক্রি হচ্ছে ৫০-৬০ টাকা, যা গত সপ্তাহে ছিল ৮০-১০০ টাকা। বরবটি বিক্রি হচ্ছে ৬০-৮০ টাকা কেজি, গত সপ্তাহেও সবজিটির দাম একই ছিল। ফুলকপি ও বাঁধাকপি আগের সপ্তাহের মতো ৩০-৪০ টাকা পিস বিক্রি হচ্ছে। পেঁপেও আগের মতো ৩০-৩৫ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে।

তবে সপ্তাহের ব্যবধানে বেগুনের দাম কিছুটা কমেছে। গত সপ্তাহে ৮০-১০০ টাকা কেজি বিক্রি হওয়া বেগুনের দাম কমে ৪০-৬০ টাকার মধ্যে বিক্রি হচ্ছে। মুলার কেজি ৫০ টাকা থেকে কমে ২০-৩০ টাকার মধ্যে চলে এসেছে। করলা আগের মতো ৬০-৭০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে।

রামপুরার বাসিন্দা শামীম বলেন, এখন শীতের সবজির ভর মৌসুম। বাজারে সব ধরনের শীতের সবজি রয়েছে। স্বাভাবিকভাবেই সব ধরনের সবজির দাম কমার কথা। শিম, মুলার দাম কিছুটা কমেছে, কিন্তু যে হারে সবজির দাম কমার কথা সে হারে কমেনি। এখন ছোট ছোট এক পিস ফুলকপি ৪০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

এদিকে প্রতি কেজি পেঁয়াজ ২০০-২৪০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে। পেঁয়াজের এই দামের বিষয়ে হাজীপাড়ার ব্যবসায়ী জসিম বলেন, শ্যামবাজারে এখন পেঁয়াজ কম। শুনছি কিছুদিনের মধ্যেই নতুন পেঁয়াজ আসবে, তখন হয়তো দাম কমবে। নতুন পেঁয়াজ না আসা পর্যন্ত পেঁয়াজের দাম কমার কোনো সম্ভাবনা নেই।



মন্তব্য চালু নেই