মেইন ম্যেনু

সাউথ আফ্রিকায় শিবচরের যুবকের মৃত্যু

মাদারীপুর প্রতিনিধি : সাউথ আফ্রিকা গিয়ে ছিলো জীবিকার তাগিদে সেখানে ডাকাতের দেয়া আগুনে দগ্ধ হয়ে শিবচরের ইমরান (২৮) নামের এক যুবকের মৃত্যুর ঘটনা ঘটছে। বুধবার ভোরে সাউথ আফ্রিকার এক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়ে থাকে। এর আগে ইমরান গত সোমবার (২১ অক্টোবর) রাতে ডাকাতের দেয়া আগুনে দগ্ধ হয়। তার মৃত্যুতে পরিবারের সদস্য ও স্বজনদের মধ্য চলছে আহাজারী। স্বজনরা সরকারের কাছে নিহত ইমরানের লাশ দ্রুত দেশে ফেরত আনার দাবী জানিয়েছেন।

জানা গেছে, প্রায় দেড় বছর আগে একমাত্র ছেলে ইমরানকে সাউথ আফ্রিকা পাঠায় মাদারীপুরের শিবচরের দ্বিতীয়াখন্ড ইউনিয়নের মুজাফফরপুর খলিফাকান্দি গ্রামের কৃষক দুদু মিয়া খলিফা তার জমি বিক্রি করে ও ৭ লাখ টাকা ধার করার মাধ্যমে। ইমরান সাউথ আফ্রিকার ওরেঞ্জফার্ম এলাকায় দোকান করতেন।

গত সোমবার রাতে তার দোকানে বন্দুকধারী একদল ডাকাত এসে হানা দেয়। ডাকাতি শেষে করে দোকান আটকে পেট্রোল ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয় ডাকাতেরা। এসময় শিবচরের আব্দুর রহিম নামে আরো এক যুবক আহত হয়। অন্য প্রবাসীরা গুরতর আহত অবস্থায় তাদেরকে উদ্ধার করে স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করে। আজ বুধবার বাংলাদেশ সময় ভোরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইমরান মৃত্যু হয়। অন্যদিকে আহত রহিম চিকিৎসাধীন আছেন। ইমরানের মৃত্যুর সংবাদ তার বাড়িতে পৌছানের পরে স্বজনদের আহাজারি থাকছেন না। পুরো এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে। স্বজনরা দাবী জানিয়েছেন নিহত ইমরানের লাশ সরকার যাতে দ্রুত দেশে এনে পরিবারের নিকট হস্তান্তর করেন তারা।

নিহত ইমরানের খালাতো ভাই আব্দুস সালাম বলেন,’ডাকাতি করতে এসে ওর গায়ে পেট্রোল ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয় ডাকাতেরা। ওখানকার হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়। কিন্তু আজ ভোরে আমরা তার মৃত্যু খবর পাই।

নিহত ইমরানের বোন রোজিনা বেগম বলেন, আমাদের চার বোনের একমাত্র ভাই ছিল ইমরান। আমরা ধার দেনা করে আদরের ভাইটারে বিদেশ পাঠাইছিলাম। ডাকাতরা ওরে বাঁচতে দিল না। এখন আমাদের পরিবারের কি হবে। কিভাবে ধার শোধ করবো।

নিহত ইমরানের বাবা দুদু মিয়া খলিফা বলেন, আমার একমাত্র ছেলেরে ডাকাতরা মাইরা ফালাইছে। ওর মুখটা শেষবারের মতো দেখতে চাই। ওর লাশ তারাতারি যেন দেশে আনার ব্যবস্থা করা হয় সরকারের কাছে এইটাই আমার দাবী।



মন্তব্য চালু নেই