সাতক্ষীরায় একইগাছে ঝুলন্ত গৃহবধু ও যুবকের মরদেহ উদ্ধার

সাতক্ষীরার কলারোয়া উপজেলার শ্রীপতিপুর গ্রামে আমগাছের ডালে ঝুলন্ত গৃহবধু ও যুবকের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

রবিবার (৭ ফেব্রুয়ারি) সকালে তাদের মরদেহ উদ্ধার হয়। রাতের কোনো এক তারা তারা আত্নহত্যা করেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। প্রেমঘটিত বিষয়ে এই আত্নহত্যার ঘটনা ঘটতে পারে বলে এলাকাবাসীর ধারণা।
তবে পুলিশ বলছে, এখনই বলা সম্ভব নয়, ঘটনার তদন্ত চলছে।

মারা যাওয়া গৃহবধু ফাতেমা বেগম (৪০) উপজেলার কয়লা ইউনিয়নের শ্রীপতিপুর গ্রামের শেখ হাসানের স্ত্রী ও যুবক করিম পাড় (৩০) শ্যামনগর উপজেলার ধুমঘাট দক্ষিণপাড়ার জয়নাল পাড়ের ছেলে।

স্থানীয় ইউপি সদস্য নজরুল ইসলাম জানান, সকালে শেখ আব্দুল হাই আমাকে ফোন করে জানায় আমার বাড়িতে দুইজন আত্নহত্যা করেছে। থানা পুলিশে খবর দাও। মারা গেছে শেখ আব্দুল হাইয়ের পুত্রবধু ও অপর এক যুবক। আব্দুল হাইয়ের ছেলে শেখ হাসান কিছুটা মানুসিক ভারসামস্যহীন। প্রেমঘটিত কারণে এমন ঘটনা ঘটতে পারে বলে সকলেই ধারণা করছেন।

তবে এ ঘটনায় শেখ আব্দুল হাইয়ের সঙ্গে একাধিকবার যোগাযোগ করা হলেও তিনি ফোনকল রিসিভ করেননি।

কলারোয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মীর খায়রুল কবির জানান, ‘সকাল সাড়ে ৭টার দিকে মোবাইল ফোনে ঘটনাটি থানায় জানানোর পর মরদেহ দুটি উদ্ধার করা হয়েছে। একটি আমগাছে ডালে একই রশ্নিতে দুই পাশে ঝুঁলছিল দুই মরদেহ। কি কারণে তারা আত্নহত্যা করেছে সেটির কারণ এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি। ঘটনাটি তদন্ত করা হচ্ছে। সুরতহাল শেষে লাশ ময়নাতদন্তের জন্য সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘যুবকের শরীরে আমরা কোন আঘাতের চিহ্ন পায়নি তবে গৃহবধুর মুখে ও গলায় আচড়ের দাগ রয়েছে। তদন্ত চলছে, বিস্তারিত পরে জানা যাবে।’

সিআইডি সহ পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

এদিকে, ঘটনাটি আত্মহত্যা নাকি হত্যা সেটি আইন-শৃংখলা বাহিনী খতিয়ে দেখছেন বলে জানা গেছে।



মন্তব্য চালু নেই