মেইন ম্যেনু

স্কুল রেখে প্রধান শিক্ষক দলিল লেখায় ব্যস্ত

বগুড়ায় একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক স্কুল রেখে সারাক্ষণ সাবরেজিস্ট্রি অফিসে দলিল লেখার কাজে ব্যস্ত থাকেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

শেরপুরের চোমরপাথালিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ওই প্রধান শিক্ষকের নাম গোলাম রব্বানী। স্কুলে পাঠদান ব্যাহত হওয়ায় অভিভাবকদের মাঝে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

অভিযোগের বিষয়ে লাইসেন্সধারী দলিল লেখক গোলাম রব্বানী জানান, তিনি আগের মতো এ কাজ করেন না। তবে বিভিন্ন সময় সাবরেজিস্ট্রি অফিসে যাতায়াত করেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, শেরপুর উপজেলার চোমরপাথালিয়া গ্রামের মৃত জসমত আলীর ছেলে রব্বানী ২০০৮ সাল থেকে সাবরেজিস্ট্রি অফিসে দলিল লেখকের (লাইসেন্স নম্বর-১৬৪) কাজ শুরু করেন। ২০১০ সালে তার গ্রামে ৩০ শতক জমির ওপর প্রাথমিক বিদ্যালয় গড়ে তোলেন। পরবর্তী সময়ে সেটি সরকারি হলেও তিনি দলিল লেখার কাজ বন্ধ করেননি। তিনি স্কুলের পরিবর্তে নিয়মিত সাবরেজিস্ট্রি অফিসে দলিল লেখার কাজ করে থাকেন।

উপজেলা দলিল লেখক কল্যাণ সমিতির সভাপতি এসএম ফেরদৌস জানান, গোলাম রব্বানী দলিল লেখক কল্যাণ সমিতির একজন সদস্য। তার নামে নিয়মিত বিভিন্ন দলিল রেজিস্ট্রি হয়।

অন্য একজন দলিল লেখক জানান, স্কুল সময়ে রব্বানী রেজিস্ট্রি অফিসের নিজ সেরেস্তায় কাজ করেন।

নাম প্রকাশে কয়েকজন অভিভাবক বলেন, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক লাইসেন্সধারী দলিল লেখক হলে তিনি স্কুলে কী শিক্ষা দেন, তা সহজে বোঝা যায়। তারা এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্টদের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা আবদুল কাইয়ুম জানান, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক লাইসেন্স নিয়ে দলিল লেখা পেশার সঙ্গে জড়িত থাকতে পারেন না। খোঁজ নিয়ে সত্যতা পাওয়া গেলে তার বিরুদ্ধে বিধিমোতাবেক ব্যবস্থা নেয়া হবে।



মন্তব্য চালু নেই