প্রধান ম্যেনু

১০ দিনের মধ্যেই কমবে পেঁয়াজের দাম : বাণিজ্যমন্ত্রী

উড়োজাহাজে করে দেশের বাইরে থেকে পেঁয়াজ আনার পরও এর কোনো প্রভাব পড়েনি পাইকারি বাজারে। রাজধানীর শ্যামবাজারে বাড়তি দামেই বিক্রি হচ্ছে পেঁয়াজ। কমিশন এজেন্টদের অভিযোগ, অতি মুনাফার লোভে দাম বাড়িয়ে দিয়েছেন আমদানিকারকরা।

এদিকে লাগামহীন পেঁয়াজের বাজার অস্থিরতা সৃষ্টিকারীদের ধরতে আগামী ২৮ নভেম্বরের মধ্যে আমদানিকারকদের এলসির তথ্য চেয়েছে সরকার।

বাজারে পেঁয়াজের সরবরাহ সংকট কাটাতে যাত্রীবাহী ও কার্গো বিমান যোগে বিভিন্ন দেশ থেকে আমদানি করা হচ্ছে পেঁয়াজ। তবে এর তেমন প্রভাব পড়েনি বাজারে।

শুক্রবার রাজধানীর শ্যামবাজার ঘুরে দেখা যায়, বৃহস্পতিবার যে দেশি পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছে ১৫০ থেকে ১৬০ টাকা কেজি, শুক্রবার দাঁড়িয়েছে ১৭৫ টাকায়। অন্যদিকে মিয়ানমারের পেঁয়াজ ১০ টাকা বেড়ে ১৫০ টাকায় আর পাকিস্তানের পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ১৭৫ টাকা কেজি। পাইকাররা দাবি, অতি লাভের আশায় পেঁয়াজের দাম বাড়িয়ে দিয়েছেন আমদানিকারকরা।

একজন ব্যবসায়ী বলেন, একটু আমদানি কম হলেই যারা আমদানিকারক তারা দাম বাড়ায় দেয়, বেশি লাভের আশায়।

এদিকে, জাতীয় প্রেসক্লাবে এক অনুষ্ঠানে বাণিজ্যমন্ত্রী আশ্বস্ত করেন, দুই সপ্তাহের মধ্যেই স্বাভাবিক হয়ে আসবে পেঁয়াজের বাজার।

বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেন, আশা করছি ১০ দিনের মধ্যেই পেঁয়াজের দাম কমবে। আমরা আমাদের প্রডাকশন বাড়াব, কারো আশায় আর থাকব না।

শ্যামবাজারের ব্যবসায়ীদের অভিযোগ, সরকারের কঠোর নজরদারির কারণে আমদানিকারকরা পেঁয়াজ আমদানি কমিয়ে দেয়ায় বাজার স্বাভাবিক হচ্ছে না।



মন্তব্য চালু নেই