২৫ পা রাখলো আমাদের যুগল দাম্পত‍্যের আঙিনায়

আমাদের সংসার জীবন নানা সংকট ও সম্পর্কের জালে আবদ্ধ। তাই অর্থনৈতিক টানাপোড়েন ও সামাজিক অবস্থা, দাম্পত্য সম্পর্ককে যেন প্রভাবিত না করে সেদিকেও খেয়াল রাখতে হয়। দাম্পত্য কলহ সৃষ্টি করে এমন বিতর্কিত বিষয়গুলো আলোচনার মাধ্যমে সমাধান করে নেয়া উচিত।

দেখা গেছে, প্রথম জীবনে দাম্পত্যকেন্দ্রিক নানা বিষয় নিয়ে তর্কবিতর্ক লেগেই থাকে। বাসা, অফিস, কাজ, খাবার, পোশাক, যোগাযোগ, অতিথি, কেনাকাটা, ইত্যাদি শত ধরনের বিষয় যেন চেপে ধরে সদ্য ব্যাচেলর জীবন থেকে দাম্পত্য জীবনে প্রবেশ করা যুগলদের। এটাই তো স্বাভাবিক দু’জনের পছন্দ-অপছন্দের নানা ছন্দ পতন ও ছোটখাটো দ্বন্দ্বে জীবনের শুরুটা বেশ নাজুক অবস্থায় থাকে। সামান্য বিষয় নিয়েও তর্কবিতর্ক ও কথা কাটাকাটি মান অভিমান লেগেই থাকে। আমি ব‍্যক্তিগত ভাবে মনে করি এবং অনেকেই এমনটা মনে করেন, দাম্পত্য জীবনের ভালোবাসার সম্পর্কে তর্কবিতর্ক, রাগ-অভিমান থাকা ভালো। এতে সম্পর্কের ভিত্তি মজবুত হয়। তবে খেয়াল রাখতে হবে সামান্য তর্ক যেন গুরুতর কোনো দ্বন্দ্বের দিকে ধাবিত না হয়। এতো এতো কথা জানার মাঝেও কিন্তু আমাদের মাঝে গুরুতর আকার ধারন করে, সংসার ভাঙ্গতে ভাঙ্গতে আবার জোড়া লাগে! আবার কারও কারও ভেঙ্গেও যায়। দাম্পত্য জীবন স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে শুধু একটা কাগজের সম্পর্ক নয় বরং এটি ভালোবাসা, বিশ্বাস, আস্থা ও বন্ধুত্বের সম্পর্ক। এ সম্পর্ককে অটুট রাখতে উভয়ের প্রতি বিশ্বাস ও সম্মান থাকা জরুরি। দু’জনের চাওয়া-পাওয়া, চিন্তা-চেতনা, আদর্শিক মূল্যবোধের বিশ্বাস ছাড়া কখনই সুন্দর দাম্পত্য গড়ে তোলা সম্ভব নয়।

সবার দাম্পত‍্য জীবন সুখী হোক

শুভকামনা।

কবি, গবেষক ও কথাসাহিত্যিক নাজমীন মর্তুজা‘র ফেসবুক ওয়াল থেকে নেওয়া।



মন্তব্য চালু নেই