প্রধান ম্যেনু

৯৮ বছর বয়সেও তরতাজা তাদের ভালোবাসা

“জীবন ফুরিয়ে যাবে, ভালোবাসা ফুরাবে না জীবনে… মোরা আরো আগে কেন আসিনি, কেন আসিনি এই ভুবনে”। কনক চাঁপা’র গানের এই কথার মতো ফুরন্ত জীবনে অফুরন্ত প্রেম চোখে পড়লো ৯৮ বছর বয়সী এক বৃদ্ধের মধ্যে। আজ ১৪ ফেব্রুয়ারি ভালোবাসা দিবসের সাতসকালে এমনই দৃশ্যের অবতরণ ঘটে সাতক্ষীরার কলারোয়া উপজেলার সোনাবাড়ীয়া গ্রামে।

সম্ভ্রান্ত খাঁ বাড়ির মহতাব উদ্দীন খাঁ ও আয়মনা বিবির জীবনের পড়ন্ত বেলার ভালোবাসার এই জীবন্ত প্রদীপ যেন তারুণ্যের মহাকাব্য সৃষ্টি করেছে। কিছুটা ঘটা করেই ঘটেছে ভালোবাসার এমন নান্দনিক বহিঃপ্রকাশ। কুয়াচ্ছন্ন শীতের সকালটা ছিল ভালোবাসার আবরণে মুড়ানো একটি মুহূর্ত।

ফাগুনের প্রথম সকালে মহতাব উদ্দীন খাঁ ভালোসার এমন প্রতিচ্ছবি সবাইকে আবেগাপ্লুত করে ফেলে। বয়সের বাঁধ মাড়িয়ে তিনি জানান দিয়েছেন ভালোবাসার কোনো বয়স নেই। সাড়ে ৭ যুগ আগে যার হাত ধরে ভালোবাসার প্রথম সকালটা শুরু হয়েছিল তিনি আজও যেন তার কাছে অম্লিন স্পর্শ।

ভালোবাসার এমন বহিঃপ্রকাশের অনুভূতির বিষয়ে জানতে চাইলে মহতাব উদ্দীন খাঁ’র বলেন, ‘আমি আমার স্ত্রীকে খুব ভালোবাসি। তার জন্য এখনো আমি সচল। সে আমার যেভাবে যত্ন নেয় তাতে আমি অনেক সুস্থ আছি এবং ভালো আছি। যার কারণে এতকিছু, তাকে ভালো না বাসলে কাকে ভালোবাসবো।’ কথাগুলো শেষ করতেই আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন তিনি।

৭৫ বছরের দাম্পত্য জীবনে প্রিয় সহধর্মীনি ছিলেন তার আস্থা, ভরসা, অনুপ্রেরণার একটি নাম। তারুণ্যের সেই ভালোবাসার সময়গুলো জীবনের শেষ দিন কটাতেও অটুট রাখতে চান তিনি। তাই ভালোবাসা দিবসে বাড়ির আঙিনায় সদ্য ফোঁটা ফুলের শুভেচ্ছায় জানান দিয়েছেন ৯৮ বছর বয়সেও তরতাজা তাদের ভালোবাসা।



মন্তব্য চালু নেই