করোনা রোগীদের জন্য করনীয়

করোনা চিকিৎসায় হাসপাতাল যখন বাড়িতে

hith-bd

অতিক্ষুদ্র আণুবীক্ষণিক জীব করোনাভাইরাস ( সার্স কোভ -২ ) এর আক্রমনে যখন পুরো বিশ্ব বিপর্যস্ত তখন উন্নয়নশীল দেশ বাংলাদেশেও সে ঢেউ আছড়ে পড়বে, এটা ছিল অবশ্যম্ভাবী। বিজ্ঞানীরা যে ভাইরাসকে জীব নাকি জড় বলবেন সেই দ্বিধায় ভোগেন সেই ক্ষুদ্র এক ভাইরাস সারা পৃথিবীর মানুষের ঘুম কেড়ে নিয়েছে। দেশে দেশে চলছে এই ভাইরাস থেকে মানুষকে বাঁচানোর নানা আয়োজন, উদ্যোগ। আমাদের মতো স্বল্প সম্পদ ও ঘন জনবসতির দেশে এ এক নতুন চ্যালেঞ্জ। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এর নাম দিয়েছে প্যানডামিক বা অতিমারী।

মহামারি সহানুভূতিকেও হত্যা করে। সমাজ চুপসে যায়। প্রতিবেশীর ঘরে আগুন লাগলে নিজেরটাও পুড়তে পারে। তেমনি লোকালয়, সমাজ ও প্রতিবেশীর সুস্থতাই আজ আমার-আপনার, আমাদের সবার সুস্থতার শর্ত। কিন্তু এতো রোগীর চাপ সামাল দেয়ার মতো স্বাস্থ্য ব্যবস্থা আমাদের আদৌ আছে কিনা বা এখন সামাল দিতে পারছে কিনা সে নিয়ে বিশেষজ্ঞ থেকে সাধারন মানুষ সবার ভিতরেই এক ধরনের সংশয়। সবাই এক চাপা আতংকে আছেন। সম্মুখ সারির যোদ্ধা ডাক্তার ও স্বাস্থ্যসেবীরাও প্রানান্ত চেষ্টা চালাচ্ছেন এই যুদ্ধে মানবতাকে জয়ী করার জন্য। কিন্তু সহস্র মানুষের চাপে সেই যুদ্ধজয় কঠিন হয়ে যাচ্ছে।

হাসপাতালে জায়গা না পেয়ে পথে পথে ঘুরে বেড়ানোর খবর আমরা দেখি প্রতিনিয়ত। আবার অনেকে সচেতনতার অভাবে বাসায় থেকে চিকিৎসা নেয়া সম্ভব হলেও হাসপাতালে গিয়ে চাপ সৃষ্টি করছেন। অনেক মুমূর্ষু রোগীরাও হাসপাতালে জায়গা না পেয়ে চিকিৎসাহীন মৃত্যুর দ্বারে পৌঁছে যাচ্ছেন। সাধারন অন্য রোগের রোগীরাও ঠিকমত চিকিৎসা সেবা পাচ্ছেন না বলে সংবাদে উঠে আসছে। ঠিক এই সময়ে দেশের কয়েকজন প্রতিশ্রুতিশীল তরুণ ডাক্তার উদ্যোগ নিয়ে ‘হাসপাতাল যখন বাড়িতে’ নামে একটি উদ্যোগ শুরু করেছেন। এই মহৎ উদ্যোগের জন্য তারা একটি ফেসবুক পেইজ খুলেছেন এই ঠিকানায়

করোনা চিকিৎসায় দেশের ডাক্তার-ডাক্তার ও ডাক্তার-সাধারন মানুষের মধ্যে একটি মমত্বের সেতুবন্ধন তৈরির এই মহৎ উদ্যোগে সবাইকে সামিল হওয়ার আহবান জানিয়েছেন এর উদ্যোক্তারা। এর অন্যতম উদ্যোক্তা ডাক্তার রোকনুজ্জামান সুমন ব্জানালেন তাদের এই উদ্যোগ এখনো অন্যান্য ডাক্তার ও সাধারন মানুষের কাছে পৌঁছাতে পারেনি। এই উদ্যোগটা একটু ছড়িয়ে দিতে মিডিয়াকর্মী ও সচেতন মানুষের ভূমিকা রাখা প্রয়োজন।

তারা ইতোমধ্যে ডাক্তারদের মধ্যে জ্ঞানের আদান প্রদানের জন্য কয়েকটি অনলাইন মিটিং এর আয়োজন করেছেন। তাদের উল্লেখযোগ্য একটি কাজ হলো, তারা করোনা চিকিৎসায় হাসপাতাল যখন বাড়িতে নামে একটি অনলাইন বুকলেট প্রকাশ করেছেন যেখানে করোনাভাইরাস আক্রান্ত রোগীদের জন্য ও সচেতন সাধারন মানুষের জন্য তারা একটি সম্পূর্ণ নির্দেশিকা প্রদান করেছেন। সেটি এই লিংক থেকে ডাউনলোড করে নিতে পারবেন। একজন সাধারন মানুষ বা করোনা আক্রান্ত রোগীর প্রায় সব জিজ্ঞাসার উত্তর তারা সেখানে দিয়েছেন।



মন্তব্য চালু নেই