মেইন ম্যেনু

কালীগঞ্জে শস্য কর্তন ও মাঠ দিবস অনুষ্ঠিত

মোঃ হাবিব ওসমান, ঝিনাইদহ প্রতিনিধি : ঝিনাইদহের কালীগঞ্জে সবজি উৎপাদনশীলতা উন্নয়ন ত্বরান্বিতকরণ প্রকল্পের আওতায় এক শস্য কর্তন ও মাঠ দিবস অনুষ্ঠিত হয়েছে। বুধবার দুপুরে উপজেলার নিয়ামতপুর ইউনিয়নের বারপাখিয়া গ্রামে এ পলিনেট প্লটের মাধ্যমে ফুল কপি প্রদর্শনীর উপর এ মাঠ দিবস অনুষ্ঠিত হয়।

এ উপলক্ষে কালীগঞ্জ উপজেলা ছাত্র লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আনিচুর রহমান মিঠু মালিথার সভাপতিত্বে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন, কালীগঞ্জ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ জাহিদুল করিম।

উপজেলা কৃষি স¤প্রসারণ অধিদপ্তরের সহযোগিতায় ও আইএফডি’র আয়োজনে আলোচনা সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, এপিপিআই এর কর্মকর্তা আফজাল মাহমুদ হোসেন, কালীগঞ্জ উপজেলা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক নয়ন খন্দকার, নিয়ামতপুর ইউনিয়নের দায়িত্বরত উপ-সহকারি কৃষি কর্মকর্তা শাহিন আলম, আইএফডি’র কর্মকর্তা জহির উদ্দীন, কৃষক মাজেদুল ইসলাম, কৃষাণী জোহরা বেগম প্রমুখ।

আলোচনা সভায় বক্তারা বলেন, পলিনেট ঘর ও ট্রিকল সেচের মাধ্যমে সবজি উৎপাদন করলে পোকামাকড় লাগে না, পানি সাশ্রয় হয় এবং কীটনাশকের ব্যবহারও কম লাগে। গুড়া ইউরিয়া ব্যবহারে বিঘা প্রতি ফুলকপি পাওয়া যায় ১৮৫৯ কেজি আর গুটি ইউরিয়া ব্যবহারে পাওয়া যায় ২১৮৫ কেজি। পার্থক্যে গুটি ইউরিয়া ব্যবহারে বিঘা প্রতি ১৮ ভাগ ফলন বেশি পাওয়া যাচ্ছে বলে জানান।

আলোচনা সভা পূর্বে বারপাখিয়া গ্রামের কৃষক মাজেদুল ইসলামের মাঠে পলিনেট ঘর ও ট্রিকল সেচের মাধ্যমে গুটি ইউরিয়া ও গুড়া ইউরিয়া প্রয়োগে উৎপাদিত ফুলকপির প্রদর্শনী প্লট থেকে ১০ করে ফুলকপি তুলে ফলনের পার্থক্য করা হয়।

ফলনে দেখা যায় গুড়া ইউরিয়া প্রয়োগ করা জমিতে ১০টি ফুল কপির ওজন হয়েছে ৪ কেজি আর গুটি ইউরিয়া প্রয়োগ করা জমির ফুলকপির ওজন হয়েছে ৪ কেজি ৭শ গ্রাম।



মন্তব্য চালু নেই