মেইন ম্যেনু

বেগমগঞ্জে গুলি করার অপরাধে চেয়ারম্যান মিলনকে গ্রেফতার করছে পুলিশ

এইচ.এম আয়াত উল্যা, নোয়াখালী প্রতিনিধি : বেগমগঞ্জে বর্তমান চেয়ারম্যান সহ ৭জনের বিরুদ্ধে মামলা গ্রেফতার ১ ঘটনাটি ঘটেছে বেগমগঞ্জ থানাধীন জিরতলী বাজার স্কুলগলির পাশে মিন্টুনের দোকানের সামনে পাকা রাস্তার উপর। বে-আইনীন জনতাবদ্ধে পথরোধ করিয়া হত্যার উদ্দেশ্যে মারধর করিয়া গুরুতর ও মারাত্মক জখম ও প্রানে হত্যার হুমকী প্রদান করার অপরাধে (০২) মে ২০১৯ বর্তমান চেয়ারম্যান সহ ৭ জন এজাহার নামীয় অজ্ঞাত ১৫/২০ জনের বিরুদ্ধে এই মামলা হয়। মামলার বাদী ৩ নং জিরতলী ইউনিয়নের ৯ নং ওয়ার্ড, দৌলতপুর গ্রামের (আফসার উদ্দিন) মুন্সি বাড়ীর মৃত আলী আকবরের ছেলে দেলোয়ার হোসেন (৬০) এইদিকে মামলার এজাহার নামীয় আসামী ৩ নং জিরতলী ইউনিয়নের ১। বর্তমান চেয়ারম্যান আব্দুল খালেকের ছেলে রফিকুল ইসলাম মিলন প্রকাশ মিলন,(৪২) ২। জিরতলী গ্রামের (গুনাজী বেপারী বাড়ীর) নজরুল ইসলামের ছেলে মঞ্জু (৩৭) ৩। মান্না (৪০)। ৪।একই গ্রামের নুরু মেম্বরের বাড়ীর আব্দুর রহমান মুন্সির ছেলে নিশান (৩৩) ৫। জমাদার বাড়ীর মৃত তোফায়ের আহম্মদের ছেলে উকিল (৪০) ৬।হাওলাদার বাড়ীর মোঃ মিয়ার ছেলে বাকের (৩২) ৭। দাস বাড়ীর আব্দুল গোফুরের ছেলে সোলেমান (৩৫) সহ ১৫/২০ জনের বিরুদ্ধে এই মামলা করা হয়। মামলা নাম্বার-৪ তাং-২ মে ২০১৯, ধারা ১৪৩/৩৪১/৩২৪/৩২৬/৩০৭/৫০৬ পেনাল কোর্ট মামলার বাদী এজাহার সূত্রে জানা যায় আসামীগন ১ দলবদ্ধ সন্ত্রাসী, দাঙ্গা হাঙ্গামাকারী, কলহপ্রিয় ও উশৃঙ্খল প্রকৃতির লোক হয়। স্থানীয় জিরতলী বাজার ইজারা নিয়ে আসামীগেরন সহিত বিরোধ চলিয়া আসিতেছে। এবং স্থানীয় ভাবে মিমাংসার জন্য আসামীদেরকে বলিলে আসামীগন আমার উপর ক্ষিপ্ত হয়। এই ধারাবাহিকতায় গতকাল বাদী মোটরসাইকের যোগে জিরতলী বাজার আসা মাত্রই বিবাদীরা আতঙ্কিত ভাবে হামলা করে।এবং বর্তমান চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম মিলন মাসুদকে লক্ষ করিয়া ৩ রাউন্ড গুলি করলে উক্ত গুলি মাসুদের পেটে পড়িয়া মারাত্মক গুরুতর জখম হয়। আসামী মঞ্জু আমির হোসেনকে লক্ষ করিয়া গুলি করিলে আমিন হোসেনের ডান বাহুতে পড়িয়া গুরুতর জখম প্রাপ্ত হয়। আসামী মুন্না আলী হোসেনকে হত্যার উদ্দেশ্যে লোহার রড দিয়া মাথায় বাড়ি মারিলে মারাত্মক কাঁটা এবং রক্তাক্ত জখম হয়। আসামী নিশান বাদী দেলোয়ার হোসেনকে হত্যার উদ্দেশ্যে মাথা লক্ষ করিয়া কোপ মারিলে উক্ত কোপ বাদীর ডান হাতে ফিরাতে গেলে ডান বাহুতে পড়িয়া কাটা রক্তাক্ত জখম হয়। আসামী উকিল হোসেন বাদীকে হত্যার উদ্দেশ্যে কোপ মারিলে উক্ত কোপ বাদীর কোমরের মাঝামাঝি পড়িয়া কাঁটা রক্তাক্ত জখম হয়। আসামী বাকের ও সোলেমান বাদীকে হত্যার উদ্দেশ্যে গলা টিপিয়া ধরিয়া শ্বাসরোধ করিয়া হত্যার চেষ্টার করে বলে জানান। এদিকে বেগমগঞ্জ মডেল থানা পুলিশ ১ নং আসামী রফিকুল ইসলাম প্রকাশ মিলন (৪২) বর্তমান চেয়ারম্যানকে ০২ মে অভিযার চালিয়ে পুলিশ গ্রেফতার করিয়া বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট, আমলী আদালত নং ০৩ নোয়াখালীতে আসামীকে প্রেরণ করে। এদিকে বেগমগঞ্জ মডেল থানার এস আই (নিঃ) মোহাম্মদ আশিকুর রহমান জানান এই মামলায় এজাহার নামীয় ১ নং আসামীকে আমরা গ্রেফতার করিয়া জেল হাজতে পাঠিয়েছি এবং অন্যান্য আসামীদেরকে গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।



মন্তব্য চালু নেই