প্রধান ম্যেনু

রাউধার ফোনে শেষ বার্তা ‘তুমি জান্নাতের ফুল হয়ে যাবে’

মালদ্বীপের মডেল ইসলামী ব্যাংক মেডিকেল কলেজের শিক্ষার্থী রাউধার মোবাইল ফোনে তার মৃত্যুর দিন ভোরে একটি বার্তা এসেছিল। বার্তায় লেখা ছিল, ‘তুমি বেহশতের ফুল হয়ে যাবে’। এই তথ্যটি এখন তদন্তকারী সংস্থার হাতে।

বৃহস্পতিবার বিকেলে রাজশাহী প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে রাউধার বাবা মোহাম্মদ আতিফ দাবি করেন, সেই বার্তার মাধ্যমে রাউধাকে হত্যার হুমকি দেয়া হয়েছিল।

লিখিত বক্তব্যে তিনি আরও বলেন, রাজশাহীর একটি রেস্টুরেন্ট রাউধার সঙ্গে এক যুবকের ঝগড়া হয়েছিল হত্যাকাণ্ডের কয়েক দিন আগে। সেই যুবক কে ছিল তা জানা যাবে রেস্টুরেন্টের সিসি ক্যামেরার ফুটেজ পর্যালোচনা করলে। সেই যুবককে আটক করা গেলে তার কাছ থেকে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাওয়া যেতে পারে বলেও তিনি জানান।

মোহাম্মদ আতিফ আরও বলেন, পাসওয়ার্ড ছাড়া আইফোনে প্রবেশ সম্ভব নয়। কিন্তু কে বা কারা রাউধার আইফোনে তার মৃত্যুর পর প্রবেশ করে এবং সেখান থেকে রাউধার বান্ধবী সিরাথ ও বন্ধু মহসিনের নাম ডিলিট করে দেয়। মহসিন ও সিরাতের নামই বা কেনো ডিলিট করা হলো এবং কে এই কাজটি করলো তা খুঁজে বের করা প্রয়োজন।

তিনি আবারও দাবি করেন, রাউধাকে হত্যা করা হয়েছে। তিনি আত্মহত্যা করেনি। সংবাদ সম্মেলনে রাউধার বাবার পাশাপাশি তার আইনজীবী কামরুল মনিরও সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন।

গত ২৯ মার্চ রাজশাহীর ইসলামী ব্যাংক মেডিকেল কলেজের ছাত্রী হোস্টেলের ২০৯ নম্বর কক্ষ থেকে রাউধার মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। ওইদিন রাতে নগরের শাহ মখদুম থানায় কলেজ কর্তৃপক্ষ একটি অপমৃত্যুর মামলা করে।

পরে রাউধার বাবা আদালতে হত্যা মামলা করেন। পুনময়নাতদন্তের জন্য তার মরদেহটি উঠানোও হয়েছিল। বর্তমানে মামলাটি তদন্ত করছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ।



মন্তব্য চালু নেই