মেইন ম্যেনু

মাগুরায় ৪ বছরের শিশুকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে যুবক আটক

মাগুরা প্রতিনিধি : মাগুরার শালিখা উপজেলার আড়পাড়া ইউনিয়নের পুখরিয়া গ্রামে মাত্র ৪ বছরের এক শিশুকে (জুঁই) হাতপা ও মুখ বেঁধে ধর্ষণের চেষ্টা চালানোর অভিযোগ পাওয়া গেছে ওই এলাকার মনির হোসেন (১৯) নামে এক যুবকের বিরুদ্ধে। আহত ও অজ্ঞান অবস্থায় শিশুটিকে উদ্ধার করে মাগুরা সদর হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। মনির আড়পাড়া ইউনিয়ন পরিষদ এর চৌকিদার মোহন মিয়ার ছেলে। ঘটনার ২দিনপর রবিবার দুপুরে মনিরকে আটক করেছে পুলিশ। এর আগে ঘটনার দিনে গত শুক্রবার অভিযুক্ত মনিরকে আটক করে স্থানীয় প্রভাবশালীদের কথায় তাকে ১২ বছরের শিশু হিসেবে দেখিয়ে থানা থেকে তাকে ছেড়ে দেয় পুলিশ।

শিশুটির ফুফু হাসিনা খাতুন জানান- শিশুটির মা ৪ বছর আগে জন্মের মাত্র ২মাস পর তাকে ফেলে অন্যত্র বিয়ে করে চলে গেছে। এ অবস্থায় সে দাদী ও ফুফুর কাছে বড় হচ্ছিল। গত শুক্রবার জুম্মার নামাজের সময় বাড়ির আশপাশে কেউ না থাকার সুযোগ নিয়ে দুবৃত্ত মনির শিশুটিকে চকলেট দেয়ার লোভ দেখিয়ে বাড়ির পাশের একটি গোয়াল ঘরে নিয়ে গিয়ে তার হাত, পা ও মুখ বেধে ধর্ষণের চেষ্টা চালায়। এ সময় শিশুটির গোঙ্গানীর শব্দে হাসিনা খাতুন সেখানে গেলে মনির দৌড়ে পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় শিশুটি তাৎক্ষনিকভাবে অজ্ঞান হয়ে যায়। ওইদিন বিকেলে পরিবারের সদস্যরা শিশুটিকে মাগুরা সদর হাসপাতালে ভর্তি করে।

তিনি অভিযোগ করেন- এ ঘটনার পর স্থানীয়রা পুলিশে খবর দিলে পুলিশ এসে তাৎক্ষনিকভাবে মনিরকে আটক করে নিয়ে যায়। পরে ওই ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য বজলু মেম্বরের যোগসাজোশে মনিরের বয়স কম দেখিয়ে তাকে ছেড়ে দিয়েছে। তিনি জানান- দুর্বৃত্ত মনির এর বয়স কমপক্ষে ১৯/২০। সে নিয়মিত শেভ করে। সে বিভিন্ন জনের বাড়িতে কামলা হিসেবে কাজ করে। তার চরিত্র মোটেই ভাল নয়। ইতিপূর্বেও তার এলাকায় অনেক খারাপ কাজ করার অভিযোগ আছে। রবিবার দুপুরে সাংবাদিকদের মাধ্যমে বিষয়টি জানাজানি হয়ে গেলে মনিরকে আবার আটক করেছে পুলিশ। তবে তিনি আশংকা করেন আইনের ফাঁক দিয়ে মনিরকে ছেড়ে দিতে পারে পুলিশ।

শালিখা উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা অনিতা মল্লিক জানান- এ ধরনের ন্যাক্কারজনক ঘটনা যেন কেউ আর না ঘটাতে পারে সেজন্য শিশুটির উপর বর্বর আক্রমনের বিচার আমরা চাই। তবে অভিযুক্ত মনিরকে কম বয়স দেখিয়ে প্রথমে ছেড়ে দেয়ার বিষয়টি খুবই কষ্টকর। অভিযুক্ত যদি বয়সে কমও হয়ে থাকে তবে তাকে কিশোর সংশোধনাগারে পাঠানো যেতে পারে। তাই বলে তাকে আটক করে আবার ছেড়ে দেয়া কোনভাবেই সমর্থনযোগ্য নয়।

মাগুরা সদর হাসপাতালের গাইনি কনসালটেন্ট শামসুন্নাহার লাইজু জানান- শিশুটির উপর সেক্সুয়াল এসাল্ট করা হয়েছে। তবে এখন সে সুস্থ্য আছে।

এ ব্যাপারে শালিখা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা তরিকুল ইসলাম জানান- এ ঘটনায় শালিখা থানায় মামলা হয়েছে। মনিরকে আটক করা হয়েছে। তার বয়স প্রমাণের জন্য মেডিকেল পরিক্ষা করিয়ে উপযুক্ত আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।



মন্তব্য চালু নেই